(শৈবাল ও ছত্রাক) এইচএসসি : জীববিজ্ঞান সৃজনশীল প্রশ্নোত্তর

শৈবাল ও ছত্রাক হচ্ছে একাদশ-দ্বাদশ শ্রেণির জীববিজ্ঞান ১ম পত্রের ৫ম অধ্যায়। শৈবাল ও ছত্রাক অধ্যায় থেকে সেরা বাছাইকৃত ৫টি সৃজনশীল প্রশ্ন এবং সে প্রশ্নগুলোর উত্তর সম্পর্কে আলোচনা করা হলো-

সৃজনশীল প্রশ্ন ১ : শীতকালে কুয়াশা আচ্ছন্ন আর্দ্র আবহাওয়ায় কৃষিবিদ অসিম কবির একজন আলু চাষীর জমিতে গিয়ে দেখলেন আলু গাছের বয়স্ক পাতার অগ্রভাগ ও কিনারায় অনিয়মিত পানিভেজা দাগ এবং কিছু পাতার কিনারায় কালচে ভেজা দাগসহ পচন সৃষ্টি হয়েছে। এ অবস্থা উত্তোরণের জন্য তিনি আলু চাষীকে বর্তমান ও ভবিষ্যতে করণীয় সম্বন্ধে পরামর্শ দিলেন।
ক. সিনোসাইটিক মাইসেলিয়াম কী?
খ. ওয়াটার ব্লুম কিভাবে সৃষ্টি হয়?
গ. প্রতিরোধ ব্যবস্থা গ্রহণ ছাড়াই আলু ক্ষেতের ভবিষ্যৎ পরিণতি কেমন হবে তা শৈবাল ও ছত্রাক অধ্যায়েয় আলোকে ব্যাখ্যা কর।
ঘ. উদ্দীপকে আলু চাষীর প্রতি কৃষিবিদের বর্তমান ও ভবিষ্যৎ পরামর্শ কিরূপ ছিল তা শৈবাল ও ছত্রাক অধ্যায়ের আলোকে বিশ্লেষণ কর।

সমাধান : ক. বহুনিউক্লিয়াসবিশিষ্ট প্রস্থপ্রাচীরবিহীন মাইসেলিয়ামই সিনোসাইটিক মাইসেলিয়াম।

খ. Mycrocystis, Ocidellatoria ইত্যাদি শৈবাল ওয়াটার ব্লুম সৃষ্টি করে। জলে শৈবালের অতিরিক্ত বৃদ্ধিই ওয়াটার ব্লুম। অনেক সময় বিশেষ করে বর্ষাকালে জলের উপরিতলে শৈবালের সংখ্যা খুব বেড়ে ওয়াটার ব্লুমের সৃষ্টি হয়। ফলে জলে O2 এর পরিমাণ কমে গিয়ে জলজ জীবের মৃত্যু হয়।

গ. উদ্দীপকে কৃষিবিদ সেলিম রেজার দেখা আলু গাছের রোগটির নাম আলুর বিলম্বিত ধ্বসা রোগ যা Phytophthora infestans নামক ছত্রাকের আক্রমণে ঘটে থাকে। প্রয়োজনীয় প্রতিরোধ ব্যবস্থা গ্রহণের মাধ্যমে এ রোগ হতে মুক্তি পাওয়া সম্ভব। কিন্তু যথাসময়ে প্রতিরোধ ব্যবস্থা গ্রহণ না করলে আলু ক্ষেতের ভবিষ্যৎ পরিনতি ভয়াবহ হতে পারে। তাপমাত্রা অপেক্ষাকৃত বেশি এবং বাতাসে জলীয় বাষ্পের পরিমাণ কম থাকলে ছত্রাকের কনিডিয়া অঙ্কুরিত হয়ে নুতন টিস্যু বা নতুন গাছকে আক্রমণ করে। তবে তাপমাত্রা অপেক্ষাকৃত কম এবং বাতাসে জলীয় বাষ্প অধিক থাকলে যেমন- মেঘলা আবহাওয়া, ঘন কুয়াশা, বৃষ্টি ইত্যাদি সময়ে প্রতিটি কনিডিয়াম থেকে অনেকগুলো দ্বিফ্ল্যাজেলাযুক্ত জুস্পোর উৎপন্ন হয় এবং পানির সাহায্যে বা বাতাসের সাহায্যে আশেপাশের জমিতে ছড়িয়ে পড়ে।

এভাবে রোগটি দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে এবং মহামারি আকার ধারণ করে। শীতকালে তাপমাত্রা অধিক নিচে নেমে এলে এবং বাতাসে জলীয় বাষ্প অধিক থাকলে এ রোগটি ফসলের ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়ায়। ছত্রাক আক্রমণ তীব্র হলে আক্রান্ত আলু গাছ থেকে পচা ডিমের ন্যায় দুর্গন্ধ ছড়ায়। রোগাক্রান্ত আলু বীজ থেকে রোগের প্রাথমিক এবং কনিডিয়া ও জুস্পোর থেকে রোগের সেকেন্ডারি সংক্রমণ ঘটে। ফলে প্রয়োজনীয় প্রতিরোধ ব্যবস্থা গ্রহণ না করলে আলু ক্ষেতের ভবিষ্যৎ পরিণতি অত্যন্ত শোচনীয় হয়ে দাঁড়াবে।

ঘ. উদ্দীপকে আলুচাষীর প্রতি কৃষিবিদের বর্তমান ও ভবিষ্যৎ যে পরামর্শ ছিল তা নিচে বিশ্লেষণ করা হলো বর্তমানে রোগ লক্ষণ প্রকাশ পাওয়ার সাথে সাথেই ছত্রাকনাশক স্প্রে করতে হবে। প্রথমেই ১% বোর্দোমিশ্রণ ছিটিয়ে বা কপার লাইম ডাস্ট প্রয়োগ করে রোগের বিস্তার রোধ করা যায়। পানি ও পানি প্রবাহ রোগের সেকেন্ডারি বিস্তার ঘটায়। তাই পানি সেচ সীমিত রাখতে হবে। নাইট্রোজেন সারের সীমিত ব্যবহার করতে হবে। আর ভবিষ্যৎ পরামর্শ অনুযায়ী আলু চাষের জন্য সুস্থ ও জীবাণুমুক্ত বীজ ব্যবহার করতে হবে। অবশ্যই রোগমুক্ত এলাকা থেকে বীজ আলু সংগ্রহ করতে হবে। জমি থেকে আলু উঠানোর পর পরিত্যক্ত সব আবর্জনা পুড়িয়ে ফেলতে হবে।

একই জমিতে প্রতিবছর আলু চাষ না করে ১/২ বছর পর পর চাষ করলে রোগের বিস্তার কম হয়। ছত্রাক প্রতিরোধক্ষম জাত লাগাতে হবে। আগাম জাত চাষ করলে রোগ আক্রমণের আগেই ফসল তুলে নেয়া যায়। এলাকা ও জমির ধরন অনুযায়ী জাত নির্বাচন করতে হবে। স্থানীয় জাত ফলন কম হলেও সাধারণত রোগ প্রবণ নয়। পাতা থেকে আলুতে যাতে রোগ সংক্রমণ না হয়, সেজন্য আলু সংগ্রহের পূর্ব সাইনক্স বা অ্যামোনিয়াম থায়োসায়ানেট ওষুধ ছিটিয়ে গাছের পাতা ঝরিয়ে নিতে হবে। যেসব স্থানে এ রোগ হয় সেখানে গাছ ৮-১০ আঙ্গুল বড় হলেই ডায়থেন এম ৪৫ বা বোর্দোমিক্সচার নামক ছত্রাকনাশক ১৫ দিন পরপর ছিটাতে হবে।

সৃজনশীল প্রশ্ন ২ : বর্ষাকালে গোবরের স্তূপ, পঁচা খড়ের স্তূপ, কাঠের গুঁড়ি প্রভৃতি স্থানে পরভোজী, ছাতা সদৃশ এক ধরনের থ্যালয়েড জাতীয় উদ্ভিদ জন্মায় যার কোষ প্রাচীর কাইটিন দ্বারা গঠিত।
ক. DNA কী?
খ. টেরিসকে সানফার্ন বলা হয় কেন?
গ. উদ্দীপকে উল্লিখিত থ্যালাসটির দৈহিক গঠনের চিহ্নিত চিত্র দাও।
ঘ. উদ্দীপকে থ্যালাসটি মানব কল্যাণে সহায়ক— তা শৈবাল ও ছত্রাক অধ্যায়ের আলোকে মতামত দাও।

সমাধান : ক. DNA হচ্ছে সজীব কোষে অবস্থিত স্বপ্রজননশীল, পরিব্যক্তিক্ষম, সকল প্রকার জৈবিক কার্যের নিয়ন্ত্রক এবং বংশগত বৈশিষ্ট্যের ধারক ও বাহক নিউক্লিক অ্যাসিড।

খ. অধিকাংশ Pteris সাধারণত পুরাতন ও ভাঙ্গা স্যাঁতসেঁতে প্রাচীরের গায়ে জন্মায়। তবে এদের কিছু প্রজাতি রৌদ্রে জন্মাতে পারে বলে এদেরকে সান ফার্ন বলা হয়।

গ. উদ্দীপকে উল্লেখিত থ্যালয়েড জাতীয় উদ্ভিদটি হলো ছত্রাক(Agaricus). Agaricus এর দৈহিক গঠনের চিহ্নিত চিত্র শৈবাল ও ছত্রাক অধ্যায়ে পাওয়া যাবে।

ঘ. উদ্দীপকে উল্লেখিত থ্যালাসটি Agaricus. মানব কল্যাণে থ্যালাসটির গুরুত্ব শৈবাল ও ছত্রাক অধ্যায়ে আলোচনা করা আছে।

সৃজনশীল প্রশ্ন ৩ : A ও B দুটি ভিন্ন জাতীয় উদ্ভিদ এক সঙ্গে বসবাস করে। একে অপরের উপকার করে এবং একটি নতুন স্বয়ংসম্পূর্ণ থ্যালয়েড উদ্ভিদ তৈরি করে।
ক. সহবাসী ফিলামেন্ট কী?
খ. Ulothrix এর বৈশিষ্ট্য লেখো।
গ. উদ্দীপকে A ও B উদ্ভিদ দুটির পার্থক্য লেখো।
ঘ. উদ্দীপকে সৃষ্ট নতুন উদ্ভিদটির শ্রেণিবিন্যাস করে যে যে ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে তা শৈবাল ও ছত্রাক অধ্যায়ের আলোকে উল্লেখ করো।

সমাধান : ক. সহবাসী ফিলামেন্ট হচ্ছে, ফিলামেন্টের যে অংশ থেকে রাইজয়েড উৎপন্ন হয় সে অংশে অ্যান্থেরিডিয়াম সৃষ্টি হওয়ার প্রক্রিয়া।

খ. Ulothrix সালোকসংশ্লেষণকারী স্বভোজী অপুষ্পক শৈবাল। এরা সুকেন্দ্রিক, এককোষী বা বহুকোষী। শৈবালে কখনও সত্যিকার মূল, কান্ড ও পাতা সৃষ্টি হয় না। অর্থাৎ এরা সমাঙ্গদেহী। এদের দেহের ভাস্কুলার টিস্যু নেই। এদের জননাঙ্গ এককোষী, বহুকোষী হলে সেটি কোনো বন্ধ্যা কোষাবরণ দিয়ে বেষ্টিত নয়। এ শৈবালের কোষপ্রাচীর সেলুলোজ নির্মিত।

গ. উদ্দীপকে A ও B উদ্ভিদ দুটি যথাক্রমে শৈবাল ও ছত্রাক। শৈবাল ও ছত্রাক এর পার্থক্য শৈবাল ও ছত্রাক অধ্যায়ে দেওয়া আছে।

ঘ. উদ্দীপকে সৃষ্ট নতুন উদ্ভিদটি হলো লাইকেন। লাইকেনের শ্রেণীবিভাগে যে যে ক্ষেত্রে গুরুত্ব রয়েছে তা শৈবাল ও ছত্রাক উল্লেখ করা আছে।

সৃজনশীল প্রশ্ন ৪ : কাইটিনের প্রাচীর বেষ্টিত সমাড়্গদেহী ইউক্যারিওটিক মাইসেলিয়াল ও সিনোসাইটিক উদ্ভিদগোষ্ঠী যাদের সঞ্চিত খাদ্য গ্লাইকোজেন। এদের ভ্রুণ সৃষ্টি হয় না এবং ভাস্কুলার বান্ডল নেই। মানবজীবনে এদের গুরুত্ব অপরিসীম।
ক. মাইকোরাইজা কী?
খ. Agaricus এর ব্যাসিডিওকার্প এর গঠন পর্না কর।
গ. উদ্দীপকের উদ্ভিদের একটি কোষের গঠন সচিত্র বর্ণনা কর।
ঘ. উদ্দীপকের শেষ উক্তিটি শৈবাল ও ছত্রাক অধ্যায়ের আলোকে বিশ্লেষণ কর।

সমাধান : ক. উদ্ভিদ মূলের সঙ্গে ছত্রাক মাইসেলিয়ামের জালের ন্যায় জড়াজড়ি করে অবস্থানই হলো মাইকোরাইজা।

খ. Agaricus এর ব্যাসিডিওকার্প তিনটি প্রধান অংশ নিয়ে গঠিত। যথা-
i. স্টাইপ : গোড়ার দিকে দন্ডের ন্যায় অংশ হলো স্টাইপ।
ii. অ্যানুলাস: স্টাইপের মাথায় চক্রাকার যে অংশ দেখা যায়, তা হলো অ্যানুলাস।
iii. পাইলিয়াস : অ্যানুলাসের উপরে ছাতার ন্যায় অংশ হলো পাইলিয়াস। পাইলিয়াসের নিচে ঝুলন্ত পর্দার ন্যায় অংশকে বলা হয় গিল।

গ. উদ্দীপকে উল্লেখিত বৈশিষ্ট্যগুলো থেকে বুঝা যায় উদ্ভিদটি হলো এক ধরনের ছত্রাক। একটি ছত্রাক কোষের গঠন শৈবাল ও ছত্রাক অধ্যায়ে বর্ণনা করা আছে।

ঘ. উদ্দীপকের শেষ উক্তিটিতে মানব জীবনে ছত্রাকের গুরুত্ব অপরিসীম বলা হয়েছে। এ সম্পর্কে শৈবাল ও ছত্রাক অধ্যায়ে বিশ্লেষণ করা আছে।

সৃজনশীল প্রশ্ন ৫ : ব্যাঙের ছাতা নামে পরিচিত উদ্ভিদটি সব্জি, ঔষধ ও পথ্য হিসাবে ব্যবহারযোগ্য। এটি সহজে চাষ করা যায়। বাণিজ্যিকভাবে এটি চাষ করা হয়। সরকারি ভাবেও এটি চাষের প্রশিক্ষণ দেয়া হয়।
ক. Mycology কী?
খ. Agaricus এর শ্রেণিবিন্যাস লেখো।
গ. উদ্দপিকের উদ্ভিদটির ফ্রুটবডির চিহ্নিত চিত্রসহ বর্ণনা করো।
ঘ. উক্ত সবজিটির অপকারী দিক শৈবাল ও ছত্রাক অধ্যায়ের আলোকে আলোচনা করো।

সমাধান : ক. উদ্ভিদ বিজ্ঞানের যে শাখায় ছত্রাক সম্বন্ধে আলোচনা করা হয়, তাই Mycology.

খ. নিচে Agaricus এর শ্রেণিবন্যাস দেখানো হলো-
Kingdom: Fungi
Divsion: Basidiomycota
Class: Basidiomycetes
Order: Agaricales
Family: Agaricaceae
Genus: Agaricus

গ. উদ্দীপকের উদ্ভিদটি হলো Agaricus. Agaricus এর ফ্রুটবডি তথা জনন অংশের চিত্র শৈবাল ও ছত্রাক অধ্যায়ে পাওয়া যাবে।

ঘ. উদ্দীপকের উদ্ভিদটি হলো Agaricus. এটি সবজি হিসেবে খাওয়া হয়। Agaricus এর অপকারিতা শৈবাল ও ছত্রাক অধ্যায়ে আলোচনা করা আছে।

২য় অধ্যায় : কোষ বিভাজন
৩য় অধ্যায় : কোষ রসায়ন
৪র্থ অধ্যায় : অণুজীব

Leave a comment

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More