(ব্রায়োফাইটা ও টেরোডোফাইটা) এইচএসসি : জীববিজ্ঞান সৃজনশীল প্রশ্নোত্তর

ব্রায়োফাইটা ও টেরোডোফাইটা হচ্ছে একাদশ-দ্বাদশ শ্রেণির জীববিজ্ঞান ১ম পত্রের ৬ষ্ঠ অধ্যায়। ব্রায়োফাইটা ও টেরোডোফাইটা অধ্যায় থেকে সেরা বাছাইকৃত ৭টি সৃজনশীল প্রশ্ন এবং সে প্রশ্নগুলোর উত্তর সম্পর্কে আলোচনা করা হলো-

সৃজনশীল প্রশ্ন ১ : করিম গ্রামের বাড়িতে Riccia এর কিছু নমুনা সংগ্রহ করতে গিয়ে না পেয়ে ফেরত আসার পথে একটি পুরোনো দেয়ালে যৌগিক পাতা বিশিষ্ট ছোট উদ্ভিদ দেখতে পেল। উদ্ভিদটির কচি পাতা কুন্ডলিত এবং বয়স্ক পাতার নিচের পৃষ্ঠে কিনারায় দানাদার অমসৃন অংশ বিদ্যমান।
ক. সোরাস কী?
খ. উদ্ভিদের জীবনচক্রে জনুক্রম কেন গুরুত্বপূর্ণ?
গ. উদ্দীপকের নমুনাটি কীভাবে সনাক্ত করবে তা ব্রায়োফাইটা ও টেরোডোফাইটা অধ্যায়ের আলোকে ব্যাখ্যা করো।
ঘ. করিম অসমৃণ দানাদার যে অংশটি দেখেছিল, সেটি উদ্ভিদের জনুক্রমে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে- তোমার মতামতের পক্ষে যুক্তি দাও

সমাধান : ক. Pteris উদ্ভিদের পত্রকের নিম্নতলের কিনারে অবস্থিত স্পোরাঞ্জিয়ামের গুচ্ছই হলো সোরাস।

খ. উদ্ভিদের স্বাভাবিক জীবনধারা, বৈশিষ্ট্য এবং তাদের বংশধারা অক্ষুণ্ণ রাখতে জীবনচক্রে জনুক্রম গুরুত্বপুর্ণ। জনুক্রমে গ্যামিটোফাইটিক (n) পর্যায়ের সাথে (2n) স্পোরোফাইটিক পর্যায়ের পালাক্রম ঘটে থাকে। গ্যামিটোফাইটিক (n) পর্যায়ে পুং ও স্ত্রী গ্যামিট সৃষ্টি হয়। পুং ও স্ত্রী গ্যামিটের মিলনে জাইগোট (2n) তৈরি হয়, যা পরবর্তীতে স্পোরোফাইটিক উদ্ভিদের জন্ম দেয়। তাই উদ্ভিদের স্বাভাবিক জীবনধারা, বৈশিষ্ট্য এবং বংশধারা অক্ষুণ্ণ রাখার জন্য উদ্ভিদের জীবনচক্রে জনুক্রম গুরুত্বপূর্ণ।

গ. উদ্দীপকের নমুনাটি হলো Riccia। নিচে উল্লেখিত বৈশিষ্ট্যগুলো দেখে নমুনাটি অর্থাৎ Riccia শনাক্ত করা যাবে-
i. Riccia র দেহ থ্যালয়েড অর্থাৎ দেহকে মূল, কান্ড ও পাতায় বিভক্ত করা যায় না।
ii. থ্যালাসটি সবুজ,শায়িত এবং বিষমপৃষ্ঠ।
iii. থ্যালাস দ্ব্যাগ্র শাখান্বিত।
iv. Riccia গ্যামিটোফাইটিক উদ্ভিদ এবং এরা সাধারণত স্যাঁতসেঁতে মাটি এবং ভিজা প্রাচীর গাত্রে জন্মে থাকে।

v. Riccia থ্যালাসগুলো গোলাপের পাপড়ির ন্যায় চক্রাকারে অবস্থান করে।
vi. থ্যালাসের উপর পৃষ্ঠে লম্বালম্বিভাবে মধ্য শিরা থাকে এবং শিরা বরাবর লম্বা খাজ থাকে।
vii. থ্যালাসের প্রতিটি শাখার শীর্ষে একটি খাঁজ থাকে, যাকে অগ্রস্থ খাজ বলে।
viii. থ্যালাসের নিচে বহুকোষী স্কেল এবং এককোষী রাইজয়েড দেখা যায়।

ঘ. উদ্দীপকে উল্লিখিত বৈশিষ্ট্যগুলো থেকে বুঝা যায় পুরোনো দেওয়ালের উদ্ভিদটি ছিল Pleris এবং পত্রক কিনারে জাহিদের দেখা অমসৃণ দানাদার অংশটি ছিল স্পোরাঞ্জিয়াম। এই স্পোরাঞ্জিয়াম Pteris এর জনুক্রমে গুরুত্বপুর্ণ ভূমিকা রাখে। Pteris উদ্ভিদের জীবনচক্রে সুস্পষ্ট জনুক্রম রয়েছে। কারণ এখানে স্পোরোফাইটিক পর্যায়ের সাথে গ্যামিটোফাইটিক পর্যায়ের পর্যায়ক্রমিক আবির্ভাব ঘটে। পূর্ণাঙ্গ Pteris উদ্ভিদ স্পোরোফাইটিক (2n) পর্যায়ের প্রতিনিধিত্ব করে। এখানে পত্রক কিনারে স্পোরাঞ্জিয়ামের অভ্যন্তরের স্পোর মাতৃকোষ (2n) মিয়োসিস প্রক্রিয়ায় বিভাজিত হয়ে হ্যাপ্লয়েড স্পোর তৈরি করে। স্পোর গ্যামিটোফাইটক পর্যায়ে প্রথম কোষ।

স্পোর অঙ্কুরিত হয়ে প্রোথ্যালাস গঠন করে যেখানে আর্কিগোনিয়ামে ডিম্বাণু এবং অ্যান্থেরিডিয়ামে শুক্রাণু তৈরি হয়। শুক্রাণু ও ডিম্বাণুর মিলনে সৃষ্টি হয়’ ডিপ্লয়েড জাইগোট (2n)। জাইগোট বার বার বিভাজিত হয়ে নতুন স্পোরোফাইটিক উদ্ভিদের জন্ম দেয় যা ধীরে ধীরে পূর্ণাঙ্গ Pteris এ পরিণত হয়। এভাবে উদ্ভিদটির জনুক্রম সম্পন্ন হয়। উদ্ভিদটির জনুক্রমে অমসৃণ দানাদার অংশ অর্থাৎ স্পোরাঞ্জিয়াম তৈরি না হলে সেখান থেকে স্পোর তৈরি হতো না। স্পোর তৈরি না হলে প্রোথ্যালাস তথা শুক্রাণু ও ডিম্বাণুও তৈরি হতো না। ফলে উদ্ভিদটির জনুক্রমে বাধা সৃষ্টি হতো। তাই উদ্ভিদটির জনুক্রমে উদ্দীপকের অমসৃণ দানাদার অংশ তথা স্পোরাঞ্জিয়াম গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে।

সৃজনশীল প্রশ্ন ২ : পরিবেশের প্লান্টি জগতে প্রায় সকল সদস্য সবুজ ও স্বভোজী। এদের একটি উদ্ভিদ A যাদের থ্যালাস দ্ব্যাগ্র শাখাবিশিষ্ট এবং মূলের পরিবর্তে রাইজয়েড থাকে। অপর উদ্ভিদ B যাদের দেহ মূল, কাণ্ড ও পাতায় বিভক্ত এবং এরা শাখাবিহীন।
ক. সালোকসংশ্লেষণ কাকে বলে?
খ. C3 উদ্ভিদ বলতে কী বুঝায়?
গ. উদ্দীপকে উল্লিখিত A উদ্ভিদটির অভ্যন্তরীণ গঠন বৈশিষ্ট্য চিত্রের মাধ্যমে দেখাও।
ঘ. উদ্দীপকের আলোকে B উদ্ভিদটির জীবন চক্র বিশ্লেষণ করো।

সমাধান : ক. যে জৈব রাসায়নিক প্রক্রিয়ায় উদ্ভিদ সূর্যের আলো, পানি, CO2 এবং ক্লোরোফিলের সহায়তায় শর্করা জাতীয় খাদ্য প্রস্তুত করে তাই সালোকসংশ্লেষণ।

খ. যে সকল উদ্ভিদ সালোকসংশ্লেষণের অন্ধকার পর্যায়ে তিন কার্বনবিশিষ্ট স্থায়ী যৌগ তৈরি করে তাদের C3 উদ্ভিদ বলে। নাতিশীতোষ্ণ অঞ্চলের উদ্ভিদসমূহে সালোকসংশ্লেষণের অন্ধকার পর্যায়ের শুরুতে কোষস্থ রাইবুলোজ রিসফসফেট নামক ৫-কার্বন যৌগের সাথে কার্বন-ডাইঅক্সাইড যুক্ত হয়ে একটি অস্থায়ী ৬ কার্বনবিশিষ্ট যৌগ উৎপন্ন হয়। এই অস্থায়ী যৌগটি তাৎক্ষণিকভাবে ভেঙে দুই অণু ৩-কার্বন বিশিষ্ট স্থায়ী যৌগ ৩- ফসফোগ্লিসারিক এসিড উৎপন্ন করে। যেমন- ধান, গম ইত্যাদি।

গ. উদ্দীপকে উল্লেখিত A উদ্ভিদটি হলো ব্রায়োফাইটা গ্রুপের Riccia. Riccia এর অভ্যন্তরীণ গঠন বৈশিষ্ট্যের চিত্র ব্রায়োফাইটা ও টেরোডোফাইটা অধ্যায়ে দেওয়া আছে।

ঘ. উদ্দীপকে উল্লেখিত B উদ্ভিদটি হলো Pteris. Petris এর জীবনচক্র ব্রায়োফাইটা ও টেরোডোফাইটা অধ্যায়ে বিশ্লেষণ করা আছে।

সৃজনশীল প্রশ্ন ৩ : ক্লাশরুমের জানালার পাশে এক ধরনের সবুজ অপুষ্পক উদ্ভিদ দেখিয়ে শিক্ষক ছাত্রদেরকে বললেন, একে ঢেঁকিশাক বলে।
ক. লাইকেন কী?
খ. Riccia-এর বৈশিষ্ট্য লেখো।
গ. উদ্দীপকে উল্লিখিত উদ্ভিদটিতে অযৌন জননের মাধ্যমে কিভাবে বংশবৃদ্ধি ঘটে তা ব্রায়োফাইটা ও টেরোডোফাইটা অধ্যায়ের আলোকে বর্ণনা করো।
ঘ. উদ্দীপকে উল্লিখিত উদ্ভিদ গ্রুপটি জীবন্ত জীবাশ্ম হিসেবে পরিচিত উদ্ভিদ গ্রুপ থেকে কোন কোন দিক থেকে সাদৃশ্যপূর্ণ ও বৈসাদৃশ্যপূর্ণ বলে তুমি মনে করো তা ব্রায়োফাইটা ও টেরোডোফাইটা অধ্যায়ের আলোকে বিশ্লেষণ করো।

সমাধান : ক. শৈবাল ও ছত্রাক মিলিতভাবে সম্পূর্ণ পৃথক ধরনের একজাতীয় উদ্ভিদের সৃষ্টি করে থাকে যাকে বলা হয় লাইকেন।

খ. Riccia -এর দেহ থ্যালয়েড অর্থাৎ মূল, কান্ড ও পাতায় বিভক্ত নয়। থ্যালাস সবুজ, শায়িত, চ্যাপ্টা এবং বিষমপৃষ্ঠ। থ্যালাস দ্ব্যাগ্রশাখাবিশিষ্ট এবং প্রতি শাখার মাথায় খাজযুক্ত। থ্যালাসের নিচের পৃষ্ঠ হতে বহুকোষী স্কেল ও এককোষী রাইজয়েড সৃষ্টি হয়। রাইজয়েড মসৃণ ও অমসৃণ। থ্যালাসের অভ্যন্তরীণ টিস্যু দু’প্রকার সালোকসংশ্লেষণকারী ও সঞ্চয়ী অঞ্চলে বিভেদিত।

গ. উদ্দীপকে উল্লেখিত উদ্ভিদটি হলো Pteris. Pteris উদ্ভিদের অযৌন বংশবৃদ্ধির উপায় ব্রায়োফাইটা ও টেরোডোফাইটা অধ্যায়ে বর্ণনা করা আছে।

ঘ. উদ্দীপকে উল্লেখিত উদ্ভিদটি হলো Ptresis. যা টেরিডোফাইটা গ্রুপের অন্তর্ভুক্ত। অপরপক্ষে জীবাশ্ম হিসেবে পরিচিত উদ্ভিদটি হলো Cycas. যা নগ্নবীজী গ্রুপের অন্তর্ভুক্ত। দুইটি গ্রুপের সাদৃশ্য ও বৈসাদৃশ্য ব্রায়োফাইটা ও টেরোডোফাইটা অধ্যায়ে আলোচনা করা আছে।

সৃজনশীল প্রশ্ন ৪ : P উদ্ভিদ এবং Q উদ্ভিদ উভয়ই অপুষ্পক। P উদ্ভিদের জীবনচক্রে গ্যামিটোফাইট প্রধান এবং স্পোরোফাইট গৌণ। অপরপক্ষে Q উদ্ভিদে স্পোরোফাইট প্রধান এবং গ্যামিটোফাইট গৌণ।
ক. অমরা কাকে বলে?
খ. ব্রায়োফাইটকে উভচর উদ্ভিদ বলা হয় কেন?
গ. Q উদ্ভিদের জনুক্রম চিত্রের মাধ্যমে দেখাও।
ঘ. P ও Q উদ্ভিদের দৈহিক গঠনের তুলনামূলক আলোচনা করো।

সমাধান : ক. গর্ভাশয়ের ভেতরে যে টিস্যু থেকে অভিউল বা ডিম্বক সৃষ্টি হয় সে টিস্যুকে অমরা বলে।

খ. ব্রায়োফাইট প্রধানত স্থলে জন্মায়। এছাড়া বর্ষাকালে আর্দ্র ও ভেজা স্যাঁতসেঁতে ছায়াময় পরিবেশে দলবদ্ধ হয়ে জন্মায়। স্থলে জন্মালেও ও পানি ছাড়া এদের জনন, বৃদ্ধি ও বিকাশ ঘটে না। এ জন্য ব্রায়োফাইটকে উভচর উদ্ভিদ বলা হয়।

গ. P উদ্ভিদটি Ptresis উদ্ভিদের স্পষ্ট জনুক্রম বিদ্যমান। কারণ এখানে স্পোরোফাইটিক জনুর সাথে গ্যামাইটোফাইটিক জনুর অনুক্রমের মাধ্যমে জনুক্রম সম্পন্ন হয়। Ptresis উদ্ভিদের জনুক্রমের চিত্র ব্রায়োফাইটা ও টেরোডোফাইটা অধ্যায়ে পাওয়া যাবে।

ঘ. উদ্দীপকে উল্লেখিত P উদ্ভিদটি হলো Riccia যা ব্রায়োফাইটস এবং Q উদ্ভিদটি Ptresis যা টেরিডোফাইটিস। উভয় উদ্ভিদের দৈহিক গঠনের তুলনামূলক আলোচনা ব্রায়োফাইটা ও টেরোডোফাইটা অধ্যায়ে পাওয়া যাবে।

সৃজনশীল প্রশ্ন ৫ : বকুল ভাঙা দেয়ালের পার্শ্ব থেকে ছোট উদ্ভিদ তুলে নিয়ে এলো, শিক্ষক বললেন এটি ভাস্কুলার ক্রিপ্টোগ্যামাস। এর কান্ড রাইজোম জাতীয়, কুন্ডলিত কচিপাতা সবজি হিসাবে ব্যবহার যোগ্য। এটি হোমোস্পোরাস। এর গ্যামিটোফাইট হৃদপিন্ডাকার থ্যালয়েড ও সহবাসী। এর জীবনচক্র হৈটেরোমরফিক ধরনের।
ক. র‍্যামেন্টাম কী?
খ. মস ও ফার্ণের তুলনা কর।
গ. উদ্দীপকের উদ্ভিদটির যৌনজনন তা ব্রায়োফাইটা ও টেরোডোফাইটা অধ্যায়ের আলোকে ব্যাখ্যা কর।
ঘ. উদ্দীপকের উদ্ভদটির জনুক্রম ব্যাখ্যা করে এটি হোমোমরফিক নয় কেন? তোমার মতামত যুক্তিসহকারে উপস্থাপন কর।

সমাধান : ক. র‍্যামেন্টাম হলো Pteris উদ্ভিদের শল্কপত্র।

খ. মস ও ফার্ণের মধ্যে তুলনা: মসের প্রধান দেহ গ্যামিটোফাইটিক, কিন্তু ফার্নের প্রধান দেহ স্পোরোফাইটিক। মস উদ্ভিদদেহে ভাস্কুলার বান্ডল অনুপস্থিত হলেও ফার্ন উদ্ভিদে ভাস্কুলার বান্ডল উপস্থিত। মসস্পোর অঙ্কুরিত হয়ে প্রোটোনেমা তৈরি হয়, কিন্তু ফার্ন স্পোর অঙ্কুরিত হয়ে প্রোথ্যালাস তৈরি হয়। মস এর স্পোরোফাইট পদ, ও ক্যাপসিউলে বিভক্ত, অন্য দিকে ফার্নের স্পোরোফাইট মুল, কান্ড ও পাতায় বিভক্ত। মস ও ফার্ন উভয়েই অপুষ্পক উদ্ভিদ।

গ. উদ্দীপকে উল্লেখিত বৈশিষ্ট্যগুলো থেকে বুঝা যায় এটি ফার্ন জাতীয় উদ্ভিদ Ptresis. Ptresis এর যৌনজনন সম্পর্কে ব্রায়োফাইটা ও টেরোডোফাইটা অধ্যায়ে ব্যাখ্যা করা আছে।

ঘ. উদ্দীপকের উদ্ভিদটি প্রকৃতপক্ষে ফার্ন জাতীয় উদ্ভিদ Ptresis. Ptresis উদ্ভিদের জীবনচক্রে সুস্পষ্ট অনুক্রম দেখা যায়, যা ব্রায়োফাইটা ও টেরোডোফাইটা অধ্যায়ে আলোচনা করা আছে।

সৃজনশীল প্রশ্ন ৬ : i) কাণ্ড রাইজোম জাতীয় কচি পাতা কুণ্ডলিত, ভাস্কুলার টিস্যু আছে, অপুষ্পক→উদ্ভিদ।
ii) পাতা বিষমপৃষ্ঠ, রাইজয়েড আছে, ভাস্কুলার টিস্যু নেই, থ্যালয়েড, অপুষ্পক→উদ্ভিদ।
ক. কার্বোহাইড্রেট কী?
খ. এনাফেজ পর্যায়টি চিত্রসহ বর্ণনা কর।
গ. উদ্দীপকের (i) নং উদ্ভিদের গ্যামিটোফাইট দশা চিত্রসহ ব্যাখ্যা করো।
ঘ. উদ্দীপকে উল্লিখিত উদ্ভিদ দুটি যে বিভাগের অন্তর্গত তাদের মধ্যে পার্থক্য আছে কি না মতামত দাও।

সমাধান : ক. কার্বন, হাইড্রোজেন এবং অক্সিজেনের সমন্বয়ে গঠিত যৌগই কার্বোহাইড্রেট।

খ. কোষ বিভাজনের অ্যানাফেজ পর্যায়ে প্রতিটি ক্রোমোসোমের সেন্ট্রোমিয়ার দুভাগে বিভক্ত হয়, ফলে ক্রোমাটিড দুটি আলাদা হয়ে পড়ে। এ অবস্থায় প্রতিটি ক্রোমাটিডকে অপত্য ক্রোমোসোম বলে। অপত্য ক্রোমোসোমগুলির মধ্যে বিকর্ষণ শক্তি বৃদ্ধি পায় ফলে এরা বিষুবীয় অঞ্চল থেকে পরস্পর বিপরীত মেরুর দিকে অগ্রসর হতে থাকে । অপত্য ক্রোমোসোমের মেরু অভিমুখী চলনে সেন্ট্রোমিয়ার অগ্রগামী থাকে এবং বাহুদ্বয় অনুগামী থাকে।

গ. উদ্দীপকে (i) নং উদ্ভিদটির বৈশিষ্ট্যগুলো দেখে বোঝা যায়, এটি টেরিডোফাইটা বিভাগের ফার্ন উদ্ভিদ। ফার্ন উদ্ভিদের গ্যামিটোফাইটিক পর্যায় এর চিত্র ব্রায়োফাইটা ও টেরোডোফাইটা অধ্যায়ে দেওয়া আছে।

ঘ. উদ্দীপকের উদ্ভিদ দুটির (i) নং উদ্ভিদটি টেরিডোফাইটা বিভাগের এবং (ii) নং উদ্ভিদটি ব্রায়োফাইটা বিভাগের। উদ্ভিদ জগতের এ দুটি বিভাগের মধ্যে যথেষ্ট পার্থক্য রয়েছে যা ব্রায়োফাইটা ও টেরোডোফাইটা অধ্যায়ে আলোচনা করা আছে।

সৃজনশীল প্রশ্ন ৭ : জীববিজ্ঞানের শিক্ষক ক্লাসে একটি উদ্ভিদ দেখিয়ে বললেন এটি অপুষ্পক ভাস্কুলার উদ্ভিদ গোষ্ঠীয়। এর পাতা কঁচি অবস্থায় কুকুরের লেজের মতো কুন্ডুলিত থাকে। এদের স্পোরোফাইটিক জনু গ্যামিটোফাইটিক জনু অপেক্ষা দীর্ঘ।
ক. রাইজোমর্ফ কী?
খ. হেটারোমরফিক জনুক্রম ব্যাখ্যা কর।
গ. উদ্দিপকে উল্লিখিত উদ্ভিদটির নতুন স্পোরোফাইটের চিহ্নিত চিত্র অংকন কর।
ঘ. উক্ত উদ্ভিদে n ও 2n এর পর্যায়ক্রমিক ধাপ বিশ্লেষণ কর।

সমাধান : ক. Agaricus-এর দড়ির মত হাইফাল অংশই হলো রাইজোমর্ফ।

খ. কোন কোন উদ্ভিদের জীবনচক্রে দুটি জনুর পর্যায়ক্রমিক আবির্ভাব ঘটে। এর একটি স্পোরোফাইটিক জনু এবং অপরটি গ্যামিটোফাইটিক জনু। যখন কোন উদ্ভিদের স্পোরোফাইটিক ও গ্যামিটোফাইটিক উদ্ভিদ দেহ আকার আকৃতিতে ভিন্ন ধরনের হয় তখন এ ধরনের জনুক্রমকে হেটারোমরফিক বা বিষমাকৃতির জনুক্রম বলে। যেমন- Pteris এ স্পোরোফাইটিক পর্যায় দীর্ঘ, গ্যামিটোফাইটিক পর্যায় সংক্ষিপ্ত এবং উভয় পর্যায় আকার আকৃতিতে ভিন্ন প্রকৃতির ও স্বতন্ত্র।

গ. উদ্দীপকে উল্লেখিত শিক্ষকের দেখানো উদ্ভিদটি হলো Ptresis বা ফার্ন উদ্ভিদ। যা টেরোডোফাইটা বর্গের অন্তর্গত। উক্ত উদ্ভিদের নতুন স্পোরোফাইটের চিহ্নিত চিত্র ব্রায়োফাইটা ও টেরোডোফাইটা অধ্যায়ে দেওয়া আছে।

ঘ. উদ্দীপকে উল্লেখিত Ptresis উদ্ভিদের n হলো গ্যামিটোফাইটিক জনু ও 2n হলো স্পোরোফাইটিক জনু। এ দুইটি জনুর পর্যায়ক্রমিক ধাপ ব্রায়োফাইটা ও টেরোডোফাইটা অধ্যায়ে বিশ্লেষণ করা আছে।

— ৪র্থ অধ্যায় : অণুজীব
— ৫ম অধ্যায় : শৈবাল ও ছত্রাক

Leave a comment

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More