(প্রানীর পরিচিতি) এইচএসসি : জীববিজ্ঞান সৃজনশীল প্রশ্নোত্তর

প্রানীর পরিচিতি হচ্ছে একাদশ-দ্বাদশ শ্রেণির জীববিজ্ঞান ২য় পত্রের ২য় অধ্যায়। প্রানীর পরিচিতি অধ্যায় থেকে সেরা বাছাইকৃত ৫টি সৃজনশীল প্রশ্ন এবং সে প্রশ্নগুলোর উত্তর সম্পর্কে আলোচনা করা হলো-

সৃজনশীল প্রশ্ন ১ : কার্পজাতীয় মাছের মধ্যে রুই বাংলাদেশের অতি পরিচিত একটি মাছ। এদের পেটের অংশে সাদা রঙের লম্বাটে বালিশের মতো একটি গঠন থাকে। বর্তমানে নদী ও জলাশয়ের গভীরতা কমে যাওয়ায় মাছটির বাসস্থান ও প্রজননক্ষেত্র হুমকির মুখে পড়েছে।
ক. পঙ্গপাল কী?
খ. ভেনাস হার্ট বলতে কী বুঝায়?
গ. উদ্দীপকের মাছটির পেটের অংশে প্রাপ্ত গঠনটির প্রয়োজনীয়তা ব্যাখ্যা করো।
ঘ. উদ্দীপকে উল্লিখিত মাছটির প্রাকৃতিক বাসস্থান ও প্রজননক্ষেত্র হুমকির মুখে কেন-বিশ্লেষণ করো।

সমাধান : ক. পঙ্গপাল হলো ঘাসফড়িং-এর এক ধরনের প্রজাতি যারা দলবদ্ধভাবে একস্থান থেকে অন্যস্থানে গমন করতে পারে।

খ. সাধারণত ভেনাস হার্ট বলতে মাছের হূৎপিণ্ডকে বুঝায়। কার্বন ডাইঅক্সাইড সমৃদ্ধ রক্ত বহনকারী হৃৎপিণ্ডই হলো ভেনাস হাট। এ ধরনের হূৎপিণ্ডে সর্বদা কার্বন ডাইঅক্সাইড যুক্ত রক্ত প্রবাহমান থাকে। অক্সজেন যুক্ত রক্ত কখনোই এই হৃৎপিণ্ডে আসে না।

গ. উদ্দীপকের মাছটির পেটের অংশে প্রাপ্ত যে গঠনটির কথা বলা হয়েছে তা হলো বায়ুথলি বা পটকা। বায়ুথলির প্রয়োজনীয়তা :
i. উদস্থিতিয় অঙ্গ: বায়ুথলি মাছের উদস্থিতির অঙ্গ অর্থাৎ এটি ভেতরের গ্যাসের পরিমাণ বাড়িয়ে বা কমিয়ে চারপাশের পরিবেশের সাথে সম্পর্ক রেখে পানিতে মাছের ভারসাম্য রক্ষা করে।
ii. অভিযোজনক্ষম ভাসাল অঙ্গ: বায়ুথলি মাছের ভাসাল অঙ্গ হিসেবে কাজ করে। পানির যে কোনো গভীরতায় বায়ুথলি পরিবর্তিত হয়ে পরিবেশ উপযোগী হতে পারে এবং সক্রিয়ভাবে সাঁতারে সহায়তা করে।
iii. যথাযথ মধ্যাকর্ষণ কেন্দ্র রক্ষা: বায়ুথলির এক অংশের গ্যাস অন্য অংশে স্থানান্তর করার মাধ্যমে মাছ পানিতে দেহের মধ্যাকর্ষণ কেন্দ্র রক্ষা করে।
iv. শ্বসন: পানিতে অক্সিজেনের ঘাটতি দেখা দিলে বায়ুথলিতে বিদ্যমান গ্যাস সে ঘাটতি পূরণ করে মাছের শ্বসন কাজে সহায়তা করে।
v. প্রতিধ্বনি সৃষ্টিকারী অঙ্গ: বায়ুথলি শব্দের প্রতিধ্বনি সৃষ্টি করতে পারে যা ভেবেরিয়ান অস্থিমালা দিয়ে অন্তঃকর্ণে প্রেরিত হয়।
vi. শব্দ উৎপাদন: অনেক মাছে বায়ুথলি শব্দ সৃষ্টিতে অংশগ্রহণ করে।

ঘ. উদ্দীপকে উল্লিখিত রুই মাছটি প্রাকৃতিক বাসস্থান ও প্রজননক্ষেত্র হুমকির মুখে। মাছ আমাদের জাতীয় সম্পদ। অপরিকল্পিত পদক্ষেপ ও পরিবেশ দূষণের কারণে অতিদ্রুত আমাদের এই মৎস্য সম্পদ হারিয়ে যেতে বসেছে। রুই মাছ আমাদের দেশের বিভিন্ন নদ-নদীতে বাস করে থাকে। এসব নদীতে অপরিকল্পিতভাবে বাঁধ নির্মাণ, কলকারখানার বর্জ্য অপসারণ ইত্যাদি কারণে মাছের বাসস্থান ধ্বংস হচ্ছে। আমরা জানি ফসলের জমিতে অতিরিক্ত সার ও কীটনাশক ব্যবহার করলে তা বৃষ্টির পানিতে ধুয়ে নদীতে মিশে নদীর পানি দূষিত করে। ফলে এই নদীর পানি মাছের বসবাসের অযোগ্য হয়ে পড়ে। এছাড়াও বর্তমানে অধিক জনসংখ্যার চাপের কারণে বহু জলাশয় ভরাট করে রাস্তা নির্মাণ, আবাসিক এলাকা ও কলকারখানা স্থাপনের জন্য মাছের আবাসস্থল ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। এসব কারণে মাছের প্রাকৃতিক বাসস্থান আজ হুমকির মুখে। হালদা নদীতে রুই মাছ প্রাকৃতিকভাবে ডিম পেড়ে থাকে। হালদা নদী বাংলাদেশের একমাত্র জোয়ার ভাটার নদী যেখানে রুই মাছ প্রাকৃতিকভাবে ডিম ছেড়ে থাকে। এই নদীতে মা রুই মাছ বছরে ১-৩ বার ডিম ছাড়ে। স্থানীয় মাছ চাষীরা এই নদী থেকে রুই, মৃগেল ও কালি বাউসের নিষিক্ত ডিম আহরণ করে পোনা উৎপাদন করে থাকেন। এই হালদা নদীর পানির বৈশিষ্ট্য অন্যান্য নদী থেকে ভিন্ন। এই নদীতে রয়েছে কোটি কোটি টাকার মৎস্য সম্পদ। প্রতি বছর কয়েকটি নির্দিষ্ট সময় মা মাছ ডিম ছাড়ে। এই নির্দিষ্ট সময়ে হালদা নদীতে মাছ শিকার করার ফলে মাছের প্রজনন ক্ষেত্র আজ হুমকির মুখে।

সৃজনশীল প্রশ্ন ২ : সুমন ধান ক্ষেতে কিছু সবুজ রঙের পোকা দেখল। পরের দিন সে তার জীববিজ্ঞানের ম্যাডামের নিকট পোকাটি সম্পর্কে জানতে চাইল। ম্যাডাম বললেন, এ পোকা ধানের কচি পাতা ভক্ষণ করে ফসলের ব্যাপক ক্ষতিসাধন করে এবং পোকাটির আলোকে সংবেদী অঙ্গের গঠনও উল্লেখযোগ্য। ম্যাডাম আরও বললেন যে, পোকাটির জীবন ইতিহাসে নিম্ফ হলো গুরুত্বপূর্ণ দশা।
ক. প্রজাতি কী?
খ. মেসোগ্নিয়া বলতে কী বোঝায়?
গ. উদ্দীপকে উল্লিখিত পোকাটির দর্শন এককের চিত্রসহ গঠন ব্যাখ্যা করো।
ঘ. উদ্দীপকের প্রাণিটির জীবনচক্রের ধাপগুলো প্রানীর পরিচিতি অধ্যায়ের আলোকে বিশ্লেষণ করো।

সমাধান : ক. যে জীবগোষ্ঠী নিজেদের মধ্যে যৌন জনন ঘটিয়ে উর্বর সন্তান উৎপাদন করে ঐ জীবগোষ্ঠীই হলো প্রজাতি।

খ. মেসোগ্নিয়া বলতে এক ধরনের জেলীয় মতো আঠালো, স্থিতিস্থাপক, পাতলা ও বর্ণহীন অকোষীয় স্তরকে বোঝায় যা Cnidaria জাতীয় প্রাণীদের এপিডার্মিস ও গ্যাস্ট্রোডার্মিসের মাঝখানে অবস্থিত এবং উভয় কোষস্তর নিঃসৃত। এটি বহিঃ ও অন্তঃত্বকের কোষসমূহের ভিত্তি ঝিল্লিরূপে অবস্থান করে।

গ. উদ্দীপকে উল্লেখিত পোকাটি হলো ঘাসফড়িং। যার দর্শন একক ওমাটিডিয়াম। প্রতিটি ওমাটিডিয়াম 10টি অংশ নিয়ে গঠিত। প্রানীর পরিচিতি অধ্যায়ে ওমাটিডিয়ামের লম্বচ্ছেদের চিত্রসহ গঠন দেওয়া আছে।

ঘ. উদ্দীপকের অর্থাৎ ঘাসফড়িং এর জীবনচক্রের ধাপগুলো সম্পর্কে প্রানীর পরিচিতি অধ্যায়ে আলোচনা করা আছে।

সৃজনশীল প্রশ্ন ৩ : Hydra হলো Cnidaria পর্বভুক্ত এক ধরনের দ্বিস্তরী প্রাণি। এরা গ্রীকদেশীয় দৈত্যের মতো পুনরুৎপত্তির ক্ষমতা সম্পন্ন হওয়ায় লিনিয়াস ঐ দৈত্যের নামানুসারে এই প্রাণিটির নামকরণ করেন।
ক. নেমাটোসিস্ট কী?
খ. হাইড্রাকে দ্বিস্তরী প্রাণি বলা হয় কেন?
গ. উদ্দীপকের দ্বিস্তরী প্রাণিটির বহিঃত্বকীয় কোষ সমূহের চিহ্নিত চিত্র আঁক।
ঘ. উদ্দীপকের প্রাণিটির মরুলা থেকে হাইড্রলা পর্যন্ত পরিস্ফুটনের বিভিন্ন ধাপগুলো লিখ।

সমাধান : ক. হাইড্রার নিডোব্লাস্ট কোষের অভ্যন্তরস্থ গহ্বর ও সূত্রকযুক্ত থলেটিই হলো নেমাটোসিস্ট।

খ. ভ্রূণাবস্থায় Hydra-র দেহপ্রাচীরের কোষগুলো এক্টোডার্ম ও এণ্ডোডার্ম নামক দুটি নির্দিষ্ট স্তরে বিন্যস্ত থাকে, যা পূর্ণাঙ্গ প্রাণিতে এপিডার্মিস ও গ্যাস্ট্রোডার্মিস-এ পরিণত হয় এবং এ দু’স্তরের মাঝখানে মেসোগ্লিয়া নামক অকোষীয় ও জেলীর মতো একটি স্তর থাকে। এ কারণে Hydra-কে দ্বিস্তরী প্রাণি বলা হয়।

গ. উদ্দীপকের দ্বিস্তরী প্রাণিটি হলো- Hydra, Hydra-র বহিঃত্বকীয় কোষ সমূহের চিহ্নিত চিত্র প্রানীর পরিচিতি অধ্যায়ে দেওয়া আছে।

ঘ. উদ্দীপকের প্রাণীটি অর্থাৎ Hydra-র মরুলা থেকে হাইড্রুলা পর্যন্ত পরিস্ফুটনের ধাপগুলো প্রানীর পরিচিতি অধ্যায়ে বিশ্লেষণ করা আছে।

সৃজনশীল প্রশ্ন ৪ : হালিমার শিক্ষক ক্লাসে ৬-১০টি কর্ষিকা যুক্ত একটি ক্ষুদ্র প্রাণি সম্পর্কে বললেন । প্রাণিটির কর্ষিকাতে বিষাক্ত পদার্থ নিঃসরণকারী এক ধরনের কোষ থাকে। কর্ষিকাগুলো চলন ও আত্মরক্ষায় অংশগ্রহণ করে।
ক. ইন্টারস্টিশিয়াল কোষ কী?
খ. রুই মাছের হৃৎপিণ্ডকে ভেনাস হার্ট বলা হয় কেন?
গ. উদ্দীপকের প্রাণিটির দ্রুত চলন প্রক্রিয়া ব্যাখ্যা করো।
ঘ. উদ্দীপকে উল্লিখিত কোষটির গঠন প্রানীর পরিচিতি অধ্যায়ের আলোকে আলোচনা করো।

সমাধান : ক. Hydra-র পেশি-আবরণী কোষের অন্তর্মুখী সরুপ্রান্তের ফাঁকে ফাঁকে গুচ্ছাকারে, মেসোগ্লিয়া ঘেঁষে অবস্থানকারী কোষগুলোই হলো ইন্টারস্টিশিয়াল কোষ।

খ. সাধারণত ভেনাস হার্ট বলতে মাছের হৃৎপিণ্ডকে বুঝায়। কার্বন ডাইঅক্সাইড সমৃদ্ধ রক্ত বহনকারী হৃৎপিণ্ডই হলো ভেনাস হার্ট। এ ধরনের হৃৎপিণ্ডে সর্বদা কার্বন ডাইঅক্সাইড যুক্ত রক্ত প্রবাহমান থাকে। যেহেতু রুই মাছের হৃৎপিণ্ড কেবল CO2 সমৃদ্ধ রক্তই বহন করে তাই একে ভেনাস হার্ট বলা হয়।

গ. উদ্দীপকে প্রাণিটির অর্থাৎ Hydra-র দ্রুত চলন প্রক্রিয়া হলো সমারসল্টিং বা ডিপবাজী। এ সম্পর্কে প্রানীর পরিচিতি অধ্যায়ে ব্যাখ্যা করা আছে।

ঘ. উদ্দীপকে উল্লেখিত কোষটি হলো Hydra-র নিডোসাইট কোষ। নিডোসাইটের গঠন প্রানীর পরিচিতি অধ্যায়ে আলোচনা করা আছে।

• (প্রাণীর বিভিন্নতা ও শ্রেণিবিন্যাস) এইচএসসি : জীববিজ্ঞান সৃজনশীল প্রশ্নোত্তর

সৃজনশীল প্রশ্ন ৫ : Hydra-তে চার ধরনের দংশক কোষ থাকে যেগুলো চলন, আত্মরক্ষা ও খাদ্য শিকারে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করে।
ক. প্রাণিবৈচিত্র্য কী?
খ. দ্বিস্তরী প্রাণি বলতে কী বুঝায়?
গ. উদ্দীপকে বর্ণিত কোষগুলো চিত্রসহ বর্ণনা করো।
ঘ. Hydra-র জীবন ধারণে উদ্দীপকে বর্ণিত কোষগুলোর ভূমিকা আলোচনা করো।

সমাধান : ক. পৃথিবীর মাটি, পানি ও বায়ুতে বসবাসকারী সব ধরনের প্রাণিদের মধ্যে যে জিনগত, প্রজাতিগত ও বাস্তুতান্ত্রিক বৈচিত্র্যতা দেখা যায় তাই প্ৰাণিবৈচিত্র্য।

খ. দ্বিস্তরী প্রাণি বলতে সেই সব প্রাণিদের বুঝায় যাদের ভূণাবস্থায় দেহপ্রাচীরের কোষগুলো কেবল এক্টোডার্ম ও এন্ডোডার্ম নামক দুটি নির্দিষ্ট স্তরে বিন্যস্ত থাকে। পূর্ণাঙ্গ প্রাণিতে স্তরদুটি যথাক্রমে এপিডার্মিস ও গ্যাস্টোডার্মিস-এ পরিণত হয়। এ দু’স্তরের মাঝখানে মেসোগ্লিয়া নামক অকোষীয় ও জেলীর মতো একটি স্তর থাকে। Hydra দ্বিস্তরী প্রাণির একটি উদাহরণ।

গ. Hydra-তে চার ধরনের দংশক কোষ বা নেমাটোসিস্ট থাকে যেগুলো চলন, আত্মরক্ষা ও খাদ্য শিকারে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করে। সে কোষগুলোর চিত্রসহ বর্ণনা প্রানীর পরিচিতি অধ্যায়ে বর্ণনা করা আছে।

ঘ. Hydra-র জীবন ধারণে উদ্দীপকে বর্ণিত দংশক কোষগুলো বিশেষ ভূমিকা পালন করে। এ সম্পর্কে প্রানীর পরিচিতি অধ্যায়ে আলোচনা করা আছে।

Leave a comment

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More