(প্রাণীর বিভিন্নতা ও শ্রেণিবিন্যাস) এইচএসসি : জীববিজ্ঞান সৃজনশীল প্রশ্নোত্তর

প্রাণীর বিভিন্নতা ও শ্রেণিবিন্যাস হচ্ছে একাদশ-দ্বাদশ শ্রেণির জীববিজ্ঞান ২য় পত্রের ১ম অধ্যায়। প্রাণীর বিভিন্নতা ও শ্রেণিবিন্যাস অধ্যায় থেকে সেরা বাছাইকৃত ৭টি সৃজনশীল প্রশ্ন এবং সে প্রশ্নগুলোর উত্তর সম্পর্কে আলোচনা করা হলো-

সৃজনশীল প্রশ্ন ১ : করিমের বড় ভাই আসিক প্রাণিবিজ্ঞানের ছাত্র। তিনি বললেন প্রকৃতিতে বিচিত্র ধরনের প্রাণী রয়েছে। এদের মধ্যে অনেক প্রাণীর মেরুদন্ড আছে আবার অনেকের নেই। মেরুদণ্ডী প্রাণীদের মধ্যে এক শ্রেণির প্রাণী আছে যারা শীতল রক্ত বিশিষ্ট। আসিক সাহেব করিমকে বললেন প্রাণিবিজ্ঞানে প্রাণী শ্রেণিবিন্যাসের প্রয়োজনীয়তা অনস্বীকার্য।
ক. সিলোম কী?
খ. কর্ডাটা পর্বের দুটি প্রাণীর বৈজ্ঞানিক নাম লিখ।
গ. উদ্দীপকে যে শ্রেণিটির কথা উল্লেখ করা হয়েছে তার বৈশিষ্ট্য উল্লেখ করো।
ঘ. প্রাণী শ্রেণিবিন্যাস সম্পর্কে আসিক সাহেবের উক্তিটি করো।

সমাধান : ক. সিলোম হলো এক ধরনের দেহগহ্বর যা মেসোডার্ম থেকে উদ্ভুত এবং পেরিটোনিয়াম নামক মেসোডার্মাল কোষস্তরে আবৃত।

খ. কর্ডাটা পর্বের দুটি প্রাণীর বৈজ্ঞানিক নাম :
i. Homo sapiens (মানুষ)।
ii. Panthera tigris (বাঘ)।

গ. উদ্দীপকে যে শ্রেণিটির কথা উল্লেখ করা হয়েছে তা হলো Reptilia.
Reptilia-র বৈশিষ্ট্য :
i. এরা শীতল রক্ত বিশিষ্ট প্রাণী। বুকে ভর দিয়ে চলে।
ii. অধিকাংশের দুই জোড়া পদ থাকে এবং প্রতি পদে নখরযুক্ত আঙ্গুল থাকে।
iii. ত্বক শুষ্ক ও গ্রন্থিবিহীন।
iv. হৃৎপিন্ড অসম্পূর্ণভাবে চার প্রকোষ্ঠ বিশিষ্ট।
v. এক লিঙ্গ, পুরুষের পেশীময় সঙ্গম অঙ্গ বিদ্যমান।
vi. নিষেক অভ্যন্তরীন, স্ত্রী প্রাণী সর্বদা স্থলে ডিম পাড়ে, লার্ভা দশা নেই এবং অপত্য লালন দেখা যায় না।

ঘ. প্রাণী শ্রেণীবিন্যাস সম্পর্কে আসিক সাহেবের উক্তিটি যথার্থই হয়েছে। জীববিজ্ঞানে শ্রেণীবিন্যাসের প্রয়োজনীয়তা অনস্বীকার্য। কেননা-
i. শ্রেণীবিন্যাসের মাধ্যমে কোনো প্রাণীগোষ্ঠীর অন্তর্ভুক্ত একটি প্রাণী সম্পর্কে জ্ঞান লাভ করলে ঐ গোষ্ঠীর অন্যান্য প্রাণী সম্বন্ধে ধারণা জন্মে।
ii. কম পরিশ্রম ও অল্প সময়ের মধ্যে প্রাণীজগতের অনেক সদস্য সম্পর্কে জানা ও লেখা যায়।
iii. প্রাণীকুলের পারস্পরিক সম্পর্ক বা জাতিজনির বিভিন্ন তথ্য পাওয়া যায়।
iv. প্রাণিকুলের বিবর্তনিক ধারা নির্ণয়ে সাহায্য করে। v. নতুন প্রজাতি শনাক্ত করতে শ্রেণীবিন্যাস অপরিহার্য।
vi. বন্যপ্রাণী সংরক্ষণে সাহায্য করে।
vii. অর্থনৈতিক গুরুত্বপূর্ণ প্রাণী বাছাই করা যায়।

সৃজনশীল প্রশ্ন ২ : শিক্ষক ক্লাসে Chordata পর্ব সম্বন্ধে বিশদ আলোচনা করার পর বললেন “সকল মেরুদন্ডীই কর্ডেট কিন্তু সকল কর্ডেট মেরুদন্ডী নয়” এবং মানুষ এই পর্বের কয়েকটি শ্রেণির মধ্যে একটি শ্রেণির অন্তর্গত।
ক. কোয়ানোসাইট কী?
খ. Aves শ্রেণির প্রধান বৈশিষ্ট্যগুলি লিখ।
গ. উদ্দীপকে উল্লিখিত প্রাণীটি কোন শ্রেণির অন্তর্গত? উক্ত শ্রেণীর প্রাণীটিকে সৃষ্টির সেরা জীব বলা হয় কেন? বর্ণনা কর।
ঘ. উদ্দীপকে উল্লেখিত উক্তিটি বিশ্লেষণ করো।

সমাধান : ক. কোয়ানোসাইট হলো ফ্ল্যাজেলাযুক্ত বিশেষ এক ধরনের কোষ যা পরিফেরা পর্বের প্রাণীতে পাওয়া যায়।

খ. Aves শ্রেণীর প্রধান বৈশিষ্ট্যগুলো হলো :
i. দেহ পালকে আবৃত এবং অগ্রপদ দুটি ডানায় রূপান্তরিত।
ii. চোয়াল দন্ডহীন চ্যুতে পরিণত হয়েছে।
iii. অস্থি হালকা ও বায়ুপূর্ণ।

গ. উউদ্দীপকে উল্লেখিত প্রাণীটি অর্থাৎ মানুষ Mammalia শ্রেণীর অন্তর্গত। Mammalia শ্রেণীর সাধারণ বৈশিষ্ট্যগুলো ছাড়াও মানুষের কিছু অন্য বৈশিষ্ট্য রয়েছে। এ কারণে মানুষকে সৃষ্টির সেরা জীব বলা হয়। এ সম্পর্কে প্রাণীর বিভিন্নতা ও শ্রেণিবিন্যাস অধ্যায়ে বর্ণনা করা আছে।

ঘ. ‘সকল মেরুদন্ডীই কর্ডেট কিন্তু সকল কর্ডেট মেরুদন্ডী নয়।’ এ সম্পর্কে প্রাণীর বিভিন্নতা ও শ্রেণিবিন্যাস অধ্যায়ে আলোচনা করা আছে।

সৃজনশীল প্রশ্ন ৩ : প্রাণিবিজ্ঞানের শিক্ষক, ছাত্র- ছাত্রীদের নিয়ে ঢাকা চিড়িয়াখানায় শিক্ষা সফরে গেলেন। ডাঙ্গায় বাঘ, হরিণ, বানর এবং পানিতে কুমির ও শুশুকসহ অসংখ্য প্রজাতির প্রাণী দেখে তারা খুবই আনন্দ পেল।
ক. সিলোম কী?
খ. জীববৈচিত্র্য বলতে কী বোঝ?
গ. উদ্দীপকের বর্ণিত ডাঙ্গায় বসবাসকারী প্রাণীগুলো কী একই শ্রেণীভুক্ত? ব্যাখ্যা করো।
ঘ. উদ্দীপকের শেষোক্ত জলজ প্রাণী দুটি ভিন্ন শ্রেণীভূক্ত কারণসহ বিশ্লেষণ করো।

সমাধান : ক. সিলোম হলো এক ধরনের দেহগহ্বর যা মেসোডার্ম থেকে উদ্ভূত এবং পেরিটোনিয়াম নামক মেসোডার্মাল কোষস্তরে আবৃত।

খ. পৃথিবীর মাটি, পানি ও বায়ুতে বসবাসকারী সবধরনের উদ্ভিদ, প্রাণী ও অণুজীবদের মধ্যে যে জিনগত, প্রজাতিগত ও বাস্তুতান্ত্রিক বৈচিত্র্যতা দেখা যায় তাই জীব বৈচিত্র্য। জীববৈচিত্র্য তিন ধরনের। যেমন: জিনগত বৈচিত্র্য, প্ৰজাতিগত বৈচিত্র্য এবং বাস্তুতান্ত্রিক বৈচিত্র্য।

গ. উদ্দীপকে বর্ণিত ডাঙ্গায় বসবাসকারী প্রাণীগুলো অর্থাৎ বাঘ, হরিণ এবং বানর প্রত্যেকেই Mammalia শ্রেণীভুক্ত। এ সম্পর্কে প্রাণীর বিভিন্নতা ও শ্রেণিবিন্যাস অধ্যায়ে ব্যাখ্যা করা আছে।

ঘ. উদ্দীপকে শেষোক্ত জলজ প্রাণী দুটির মধ্যে কুমির হলো Reptilia শ্রেণীভুক্ত। এ সম্পর্কে প্রাণীর বিভিন্নতা ও শ্রেণিবিন্যাস অধ্যায়ে বিশ্লেষণ করা আছে।

সৃজনশীল প্রশ্ন ৪ : প্রকৃতিতে বিভিন্ন ধরনের প্রাণী আছে, যেমন: কেঁচো, ব্যাঙ, সরীসৃপ, পাখি ইত্যাদি। এদের আবার দুটি ভাগ করা যায়।
ক. ভূণীয় স্তর কী?
খ. প্রতিসাম্যতা বলতে কী বুঝ?
গ. উদ্দীপকের গ্রুপ দুটির মধ্যে পার্থক্য লিখ।
ঘ. উদ্দীপকের শেষ তিনটি প্রাণির পর্ব এক হলেও শ্রেণি আলাদা— বিশ্লেষণ কর।

সমাধান : ক. ভ্রূণের যেসব কোষস্তর থেকে প্রাণীর বিভিন্ন টিস্যু ও অঙ্গ পরিস্ফুটিত হয় সেগুলোই হলো ভ্রূণীয় স্তর।

খ. প্রতিসাম্য বলতে প্রাণিদেহের মধ্যরেখীয় তলের দু’পাশে সদৃশ বা সমান আকার আকৃতিবিশিষ্ট অংশের অবস্থানকে বোঝায়। যেমন, মানবদেহকে তার কেন্দ্রীয় অক্ষ বরাবর ডান ও বামপাশে দু’টি সদৃশ্য অংশে একবার ভাগ করা যায়। অংশ দুইটি একে অপরের প্রতিরূপ। সুতরাং নির্দিষ্ট তল বা কেন্দ্র বা মধ্যরেখার সাথে সামঞ্জস্য রেখে প্রাণিদেহের এরূপ সমান বা সদৃশ অংশে বিভাজনই প্রতিসাম্য।

গ. উদ্দীপকের প্রাণীগুলোর মধ্যে দু’টি গ্রুপ পরিলক্ষিত হয়। যথা- কর্ডাটা এবং নন-কর্ডাটা। কর্ডাটা ও নন-কর্ডাটার মধ্যে পার্থক্য প্রাণীর বিভিন্নতা ও শ্রেণিবিন্যাস অধ্যায়ে আলোচনা করা আছে।

সৃজনশীল প্রশ্ন ৫ : শফিক তার বন্ধু সোহেল এর সাথে কিছু প্রাণী সম্পর্কে আলাপ করছিল যাদের ভ্রূণাবস্থায় বা জীবনের যে কোন দশায় নটোকর্ড, নার্ভকর্ড থাকে বলে তারা একটি বিশেষ পর্বের অন্তর্ভুক্ত শফিক বলল, এই বিশেষ প্রাণীগুলো ঐ বিশেষ পর্বের অন্তর্ভুক্ত হলেও সব সময় মেরুদন্ডী নয়। অর্থাৎ সকল মেরুদন্ডী কর্ডেট, কিন্তু সকল কর্ডেট মেরদন্ডী নয়।
ক. অপ্রতিসম প্রাণীর একটি উদাহরণ দাও।
খ. দ্বিপদ নামকরণ বলতে কী বোঝায়?
গ. শফিকের উল্লেখিত প্রাণীদেরকে কখন মেরুদণ্ডী প্রাণী বলা যাবে? ব্যাখ্যা করো।
ঘ. শফিকের উক্তিটির যথার্থতা বিশ্লেষণ করো।

সমাধান : ক. অপ্রতিসম প্রাণীর একটি উদাহরণ হলো— আপেল শামুক (Pila globosa).

খ. সুইডিশ বিজ্ঞানী ক্যারোলাস লিনিয়াস সর্বপ্রথম নামকরণের একটি প্রথা প্রবর্তন করেন। যাকে দ্বিপদ নামকরণ বলে। এ প্রথা অনুসারে প্রত্যেক জীবের বৈজ্ঞানিক নামের দুটি অংশ থাকে যার প্রথমটি গণ এবং দ্বিতীয়টি প্রজাতি নাম। যেমন: মানুষের দ্বিপদ নাম হলো- Homo sapience.

গ. শফিকের উল্লিখিত প্রাণীদের তখনই মেরুদন্ডী বলা যাবে যখন তাদের নটোকর্ডটি মেরুদন্ডে রূপান্তর হবে। এ সম্পর্কে প্রাণীর বিভিন্নতা ও শ্রেণিবিন্যাস অধ্যায়ে ব্যাখ্যা করা আছে।

ঘ. শফিকের উক্তিটি হচ্ছে- ‘সকল মেরুদন্ডী কর্ডেট, কিন্তু সকল কর্ডেট মেরুদন্ডী নয়’। এ সম্পর্কে প্রাণীর বিভিন্নতা ও শ্রেণিবিন্যাস অধ্যায়ে বিশ্লেষণ করা আছে।

• (কোষ ও এর গঠন) এইচএসসি : জীববিজ্ঞান সৃজনশীল প্রশ্নোত্তর

সৃজনশীল প্রশ্ন ৬ : সামুদ্রিক প্রাণী সম্পর্কে আলোচনা প্রসঙ্গে শিক্ষক বললেন, হাঙ্গর ও ইলিশ মাছ বাংলাদেশে প্রচুর পাওয়া যায়। সবচেয়ে বড় প্রাণী তিমি সমুদ্রে বাস করে কিন্তু এরা মাছ নয়।
ক. প্রতিসাম্য কী?
খ. খন্ডায়ন বলতে কী বোঝ?
গ. উদ্দীপকে শেষের প্রাণীটি মাছ নয়— ব্যাখ্যা কর।
ঘ. উদ্দীপকে প্রথম ২টি প্রাণীর তুলনামূলক আলোচনা কর।

সমাধান : ক. অক্ষের সাথে সামঞ্জস্য রেখে প্রাণিদেহের বিভিন্ন অংশের বিভাজন প্রকৃতিই হলো প্রতিসাম্য।

খ. প্রাণীদের শ্রেণীকরণ করার একটি ভিত্তি হলো খন্ডায়ন । প্রাণিদেহকে অনুদৈঘিক বা রৈখিক অক্ষ বরাবর একাধিক সদৃশ্য খন্ডকে বিভাজন করাকে খণ্ডায়ন বলে। দেহ গঠনকারী প্রত্যেক অংশকে খন্ডক বলে। খন্ডায়ন বাহ্যিক বা অভ্যন্তরীণ দুই ধরনের হতে পারে।

গ. উদ্দীপকের শেষের প্রাণীটি অর্থাৎ তিমি মাছ নয়, স্তন্যপায়ী। এ সম্পর্কে প্রাণীর বিভিন্নতা ও শ্রেণিবিন্যাস অধ্যায়ে ব্যাখ্যা করা আছে।

ঘ. উদ্দীপকের প্রথম দুটি প্রাণী হচ্ছে যথাক্রমে হাঙ্গর ও ইলিশ। এ সম্পর্কে প্রাণীর বিভিন্নতা ও শ্রেণিবিন্যাস অধ্যায়ে আলোচনা করা আছে।

সৃজনশীল প্রশ্ন ৭ : শিক্ষক ক্লাশে (Chordata) পর্ব সম্পর্কে আলোচনাকালে ছাত্র-ছাত্রীদের জানালেন এ পর্বের প্রাণীরা মেরুদন্ডী হলেও কিছু অমেরুদন্ডী কর্ডেট দেখা যায়। ছাত্র-ছাত্রীরা এ ব্যাপারে বিশদ জানতে চাইলে শিক্ষক তাদের বুঝিয়ে বললেন।
ক. দ্বিপদ নামকরণ কাকে বলে?
খ. শামুককে মলাস্কা পর্বে অন্তর্ভুক্ত করার দুটি কারণ লিখ।
গ. উদ্দীপকে আলোচিত পর্বটির বৈশিষ্ট্যসমূহ আলোচনা কর।
ঘ. শিক্ষকের উক্তিটির যুক্তিকতা নিরূপন কর।

সমাধান : ক. জীবের নামকরণের আন্তর্জাতিক নিয়মানুযায়ী গণ ও প্রজাতি নামের দুটি পদ ব্যবহার করে প্রাণীদের যে নামকরণ করা হয় তাকে দ্বিপদ নামকরণ বলে।

খ. শামুককে মলাস্কা পর্বের অন্তর্ভুক্ত করার দুটি কারণ হলো :
i. এদের দেহ কোমল, চুনময় খোলক দিয়ে আবৃত।
ii. দেহ অপ্রতিসম, অখন্ডকায়িত এবং সুষ্পষ্ট মস্তকবিশিষ্ট।

গ. উদ্দীপকে আলোচিত পর্বটি অর্থাৎ Chordata -র বৈশিষ্ট্যসমূহ প্রাণীর বিভিন্নতা ও শ্রেণিবিন্যাস অধ্যায়ে আলোচনা করা আছে।

ঘ. শিক্ষকের উক্তিটি সম্পর্কে প্রাণীর বিভিন্নতা ও শ্রেণিবিন্যাস অধ্যায়ে বিশদ আলোচনা করা আছে।

Leave a comment

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More