(জীবের বংশগতি ও বিবর্তন) নবম-দশম শ্রেনী : জীববিজ্ঞান ১২শ অধ্যায় সৃজনশীল প্রশ্ন-উত্তর

জীবের বংশগতি ও বিবর্তন হচ্ছে নবম-দশম শ্রেণির জীববিজ্ঞানের ১২শ অধ্যায়। জীবের বংশগতি ও বিবর্তন অধ্যায় থেকে সেরা বাছাইকৃত ৭টি সৃজনশীল প্রশ্ন এবং সে প্রশ্নগুলোর উত্তর সম্পর্কে আলোচনা করা হলো-

সৃজনশীল প্রশ্ন ১ : Rani is a garments worker. While sewing a needle prick in her hand. She suddenly jerking away of her hand. This action of Rani can be explained in a scientific way. Special system is related with this phenomenon.

A. Who is called the father of Genetics?
B. Why DNA replication is called semi conservative?
C. Describe the structure of the functional unit of the special system mentioned in the stem.
D. Rani suddenly jerking away her hand. Why does it happen? Describe this phenomenon in a scientific way.

অনুবাদ : রানী গার্মেন্টস কর্মী। সেলাই করতে গিয়ে তার হাতে সুচ ফুটে। হঠাৎ সে হাত সরিয়ে নিল। রানীর এই ক্রিয়াটা বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে ব্যাখ্যা করা যায়। এই বিষয়টি একটি বিশেষ পদ্ধতির সাথে সম্পর্কিত।

ক. বংশগতির জনক কে?
খ. DNA রেপ্লিকেশনকে অর্ধ-রক্ষণশীল পদ্ধতি বলা হয় কেন?
গ. উদ্দীপকে উল্লিখিত বিশেষ পদ্ধতিটির কার্যাবলির এককের গঠন বর্ণনা কর।
ঘ. রানী হঠাৎ তার হাত সরিয়ে নিল, এর কারণ কী? এই বিষয়টি বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে ব্যাখ্যা কর।

সমাধান : ক. গ্রেগর জোহান মেন্ডেল হচ্ছে বংশগতির জনক।

খ. DNA রেপ্লিকেশন পদ্ধতিতে DNA সূত্র দুটির হাইড্রোজেন বন্ধন ভেঙ্গে গিয়ে আলাদা হয় এবং প্রতিটি সূত্র তার পরিপূরক নতুন সূত্র সৃষ্টি করে। পরে একটি পুরাতন সূত্র ও একটি নতুন সূত্র সংযুক্ত হয়ে DNA অণুর সৃষ্টি হয়। একটি পুরাতন মাতৃ সূত্রক এবং একটি নতুন সৃষ্ট সূত্রকের সমন্বয়ে গঠিত বলে একে অর্ধ-সংরক্ষণ পদ্ধতি বলে।

গ. উদ্দীপকে উল্লিখিত বিশেষ পদ্ধতিটির গঠন ও কার্যকরী একক হলো নিউরন। প্রতিটি নিউরন দুটি প্রধান অংশ নিয়ে গঠিত। যথা-
ক. কোষদেহ এবং খ. প্রলম্বিত অংশ।
কোষদেহ : প্লাজমা মেমব্রেন, সাইটোপ্লাজম ও নিউক্লিয়াস সমন্বয়ে গঠিত। নিউরনের গোলাকার, তারকাকার অথবা ডিম্বাকার অংশ কোষদেহ নামে পরিচিত। সাইটোপ্লাজমে, মাইটোকন্ড্রিয়া, গলগিবস্তু, লাইসোজোম, চর্বি, গ্লাইকোজেন, রঞ্জক কণাসহ অসংখ্য নিসল দানা থাকে।
প্রলম্বিত অংশ : কোষদেহ থেকে সৃষ্ট শাখা-প্রশাখাকেই প্রলম্বিত অংশ বলে। এটি দুই ধরনের, যথা— ডেনড্রাইট ও অ্যাক্সন।

ঘ. রানী সেলাই করার সময় আঙুলে সুচ ফুটলে তাৎক্ষণিক হাত অন্যত্র সরিয়ে নেয়। এই অজানা কারণটি হলো একটি প্রতিবর্তী ক্রিয়া। আঙুলে সুচ ফুটার সময় আঙুলের ত্বকে অবস্থিত সংবেদী নিউরনের ডেনড্রাইটসমূহ ব্যথার উদ্দীপনা গ্রহণ করে। এখানে ত্বক গ্রাহক অঙ্গ হিসেবে কাজ করে। আঙুলের ত্বক থেকে এ উদ্দীপনা সংবেদী নিউরনের অ্যাক্সনের মাধ্যমে স্নায়ুকাণ্ডের ধূসর অংশে পৌছায়। স্নায়ুকাণ্ডের ধূসর অংশে অবস্থিত সংবেদী নিউরনের অ্যাক্সন থেকে তড়িৎ রাসায়নিক পদ্ধতিতে উদ্দীপনা মোটর বা আজ্ঞাবাহী স্নায়ুর ডেনড্রাইটে প্রবেশ করে। সংবেদী স্নায়ুর অ্যাক্সন ও আজ্ঞাবাহী স্নায়ুর ডেনড্রাইটের মধ্যবর্তী সিন্যাপসের মধ্য দিয়ে এ উদ্দীপনা পেশিতে প্রবেশ করে। মোটর বা আজ্ঞাবাহী স্নায়ুর নিউরনের ডেনড্রাইট থেকে উদ্দীপনা পেশিতে পৌছালে কেন্দ্রীয় স্নায়ুতন্ত্রের নির্দেশে পেশির সংকোচন ঘটে। ফলে উদ্দীপনাস্থল থেকে হাত দ্রুত আপনা-আপনি সরে যায়।

সৃজনশীল প্রশ্ন ২ : Genetics is a special branch of biology deals with heredity. Structural and behavioral traits are passed from parents to
offspring through heredity materials. Some of the genetic abnormalities are color blindness and Thalassemia. Color blindness is more common in man than woman.

A. What is respiration?
B. What do you mean by survival of the fittest?
C. Write about the heredity materials mentioned is stem.
D. Color blindness is more common is man than woman. Explain it.

অনুবাদ : বংশগতির সাথে সম্পর্কিত ‘বংশগতিবিদ্যা’ জীববিজ্ঞানের একটি বিশেষ শাখা। বংশগতি বস্তুর মাধ্যমে মাতাপিতার থেকে বৈশিষ্ট্যাবলি বংশ পরম্পরায় সঞ্চারিত হয়। বংশগতিয় কিছু অস্বাভাবিকতা হলো বর্ণান্ধতা এবং থ্যালাসেমিয়া। বর্ণান্ধতা মহিলাদের চেয়ে পুরুষের মধ্যে বেশি থাকে।

ক. শ্বসন কী?
খ. যোগ্যতমের টিকে থাকা বলতে কী বোঝ?
গ. উদ্দীপকে উল্লিখিত বংশগতিয় বস্তুগুলোর সম্পর্কে লিখ।
ঘ. বর্ণান্ধতা মহিলাদের চেয়ে পুরুষদের মধ্যে বেশি দেখা যায়- ব্যাখ্যা করো।

সমাধান : ক. শ্বসন হচ্ছে, যে প্রক্রিয়ায় জীবদেহে জৈব রাসায়নিক পদার্থ ভেঙে সরল দ্রব্যে পরিণত
হয় এবং শক্তি উৎপন্ন হয়।

খ. যোগ্যতমের টিকে থাকা বলতে কোনো বৈশিষ্ট্য, স্বভাব ও প্রবৃত্তি জীব বা তার বংশধরকে পরিবেশের সাথে মানিয়ে নিতে সক্ষম করে তোলে এবং গুণাবলি বংশপরম্পরায় সঞ্চালিত হওয়াকে বোঝায়।

গ. উদ্দীপকে উল্লেখিত বংশগতিয় বস্তুগুলোর সম্পর্কে জীবের বংশগতি ও বিবর্তন অধ্যায়ে আলোচনা করা আছে।

ঘ. ‘বর্ণান্ধতা মহিলাদের চেয়ে পুরুষদের বেশি দেখা যায়।’ এ বিষয়ে জীবের বংশগতি ও বিবর্তন অধ্যায়ে আলোচনা করা আছে।

• আরো পড়ুন- সমাজ ২য় অধ্যায় ৭ম শ্রেনী : বাংলাদেশের সংস্কৃতি ও সাংস্কৃতিক বৈচিত্র

সৃজনশীল প্রশ্ন ৩ : Evolution is the change in the hereditary characteristics of a population that passes generation to generation. Charles Darwin first intended the scientific explantion the mechanism of evolution by means of natural selection.

A. Define heredity.
B. Why many babies are born with blood concerning problems?
C. Explain “Why struggle of organisms for survival is invitable”?
D. How do the organisms is being adapted by the nature?

অনুবাদ : বিবর্তনবিদ্যা হলো বংশগতীয় বৈশিষ্ট্যের পরিবর্তন যা এক বংশধর হতে পরবর্তী বংশধরে স্থানান্তরিত হয়। চার্লস ডারউইন প্রথম প্রাকৃতিক নির্বাচনের ভিত্তিতে বিবর্তনের বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা দেন।

ক. বংশগতি কী?
খ. অনেক বাচ্চা কেন রক্তের সমস্যা নিয়ে জন্মায়?
গ. জীবের টিকে থাকার জন্য প্রতিযোগিতা কেন গুরুত্বপূর্ণ ব্যাখ্যা কর।
ঘ. প্রকৃতিতে জীব কীভাবে টিকে থাকে? ব্যাখ্যা কর।

সমাধান : ক. বংশগতি হচ্ছে, যে প্রক্রিয়ার মাধ্যমে পিতামাতার বৈশিষ্ট্যগুলো বংশানুক্রমে সন্তান সন্ততির দেহে সঞ্চারিত হয়।

খ. রক্তের লোহিত রক্ত কণিকার অস্বাভাবিক অবস্থা সৃষ্টি হলে তাকে থ্যালাসেমিয়া বলে। লোহিত রক্তকোষ দু ধরনের প্রোটিন দ্বারা তৈরি, গ্লোবিউলিন এবং B— গ্লোবিউলিন। থ্যালাসেমিয়া হয় লোহিত রক্ত কোষে এ দুটি প্রোটিনের জিন নষ্টের কারণে। ফলে এই রোগ বংশ পরম্পরায় স্থানান্তরিত হয় এবং বাচ্চা রক্তের সমস্যা নিয়ে জন্মায়।

গ. জীবের টিকে থাকার জন্য প্রতিযোগিতা গুরুত্বপূর্ণ। এর কারণ জীবের বংশগতি ও বিবর্তন অধ্যায়ে ব্যাখ্যা করা আছে।

ঘ. প্রকৃতিতে জীব যেভাবে টিকে থাকে তার বর্ণনা জীবের বংশগতি ও বিবর্তন অধ্যায়ে দেওয়া আছে।

• (কোষ বিভাজন) নবম-দশম শ্রেনী : জীববিজ্ঞান ৩য় অধ্যায় সৃজনশীল প্রশ্ন-উত্তর

সৃজনশীল প্রশ্ন ৪ : পিকুর চেহারা বাবার মতো, কিন্তু শরীরের রং মায়ের মতো। তার এই বৈশিষ্ট্যগুলো এসেছে বাবা-মা থেকে ক্রোমোজোমের প্রধান উপাদানের মাধ্যমে, যা বংশগতির রাসায়নিক ভিত্তি নামে পরিচিত। দুঃখের বিষয়, তার শরীরে রক্তজনিত একটি রোগ বাসা বেঁধেছে, যার ফলে তাকে নির্দিষ্ট সময় পর পর রক্ত দিতে হয়। চিকিৎসক বলেছেন, ২০ থেকে ৩০ বছর বয়সে পিকুর মৃত্যুর ঝুঁকি আছে।

ক. জৈব বিবর্তন কাকে বলে?
খ. বিবর্তন তত্ত্বে ‘প্রাকৃতিক নির্বাচন’ বলতে কী বোঝায়?
গ. ক্রোমোজোমের প্রধান উপাদানটির বিজ্ঞানভিত্তিক সফল ব্যবহার অপরাধ নিয়ন্ত্রণে কার্যকর ভূমিকা রাখছে— জীবের বংশগতি ও বিবর্তন অধ্যায়ের আলোকে ব্যাখ্যা কর।
ঘ. ‘পিকুর রোগটি একটি বংশগত ব্যাধি’— জীবের বংশগতি ও বিবর্তন অধ্যায়ের আলোকে বিশ্লেষণ কর।

সমাধান : ক. জৈব বিবর্তন হচ্ছে, কয়েক হাজার বছর সময়ের ব্যবধানে জীব প্রজাতির পৃথিবীতে আগমন এবং পৃথিবীতে টিকে থাকার জন্য যে পরিবর্তন ও অভিযোজন প্রক্রিয়া।

খ. প্রকৃতিতে প্রতিটি জীবের টিকে থাকার জন্য সংগ্রাম করতে হয়। এই সংগ্রামের মাধ্যমে জীবের টিকে থাকা এবং বিলুপ্ত হওয়ার বিষয়টিকে প্রাকৃতিক নির্বাচন বলে। ডারউইনের মতে জীবন সংগ্রামে সেই সব প্রাণী সাফল্য লাভ করে যাদের শারীরিক গঠন প্রকৃতিতে বেঁচে থাকার প্রয়োজনে পরিবর্তিত হয়। তারা পরিবর্তনশীল দক্ষতার পরিচয় দিয়ে অভিযোগিত গুণগুলো বংশপরম্পরায় সঞ্চারিত হয়ে বেঁচে থাকার বা বিবর্তনের প্রতিযোগিতায় জয়ী হয় এবং ব্যর্থরা প্রকৃতি কর্তৃক নির্বাচিত হয় না অর্থাৎ বিলুপ্ত হয়ে যায়।

গ. ক্রোমোজমের প্রধান উপাদানটি হলো DNA. DNA এর সফল ব্যবহার অপরাধ নিয়ন্ত্রণে কার্যকর ভূমিকা রাখছে। DNA এর অপরাধ নিয়ন্ত্রণে কিভাবে ভূমিকা রাখছে তা জীবের বংশগতি ও বিবর্তন অধ্যায়ে বিস্তর আলোচনা করা আছে।

ঘ. পিকুর রোগটি হলো থ্যালাসেমিয়া। এটি একটি বংশগতি ব্যাধি। এ রোগ সম্পর্কে জীবের বংশগতি ও বিবর্তন বিশ্লেষণ করা আছে।

সৃজনশীল প্রশ্ন ৫ : সুক্রেন্দ্রিক কোষের নিউক্লিয়াসে প্রজাতির বৈশিষ্ট্য অনুসারে নির্দিষ্ট সংখ্যক ক্রোমোজোম থাকে। রাসায়নিকভাবে ক্রোমোজোম মূলত প্রোটিন ও নিউক্লিক এসিড দ্বারা গঠিত। নিউক্লিক এসিড দুই ধরনের। এর মধ্যে কেবল DNA- ই ক্রোমোজোমের একমাত্র স্থায়ী রাসায়নিক পদার্থ এবং বংশগতি বৈশিষ্ট্যের ধারক ও বাহক।

ক. প্লাস্টিড কী?
খ. জটিল টিস্যু বলতে কী বোঝায়?
গ. উদ্দীপক অনুসারে এসিড দুইটির মধ্যে পার্থক্য নিরূপণ কর।
ঘ. মানব জীবনে উদ্দীপকে উল্লেখিত এসিডটির গুরুত্ব ব্যাখ্যা কর।

সমাধান : ক. স্ট্রোমা ও গ্রানাম সমৃদ্ধ এবং নিপোপ্রোটিন ঝিল্লি দ্বারা আবৃত উদ্ভিদ কোষের সাইটোপ্লাজমে অবস্থিত সর্ববৃহৎ ক্ষুদ্রাঙ্গের নাম প্লাস্টিড।

খ. জটিল টিস্যু বলতে বোঝায় বিভিন্ন প্রকার’ কোষের সমন্বয়ে গঠিত স্থায়ী টিস্যু। এরা উদ্ভিদে পরিবহনের কাজ করে বলে এদের পরিবহন টিস্যুও বলা হয়ে থাকে। জাইলেম ও ফ্লোয়েম এই দুই প্রকার টিস্যুর সমন্বয়ে জটিল টিস্যু গঠিত।

গ. উদ্দীপকের নিউক্লিক এসিড দুই ধরনের। যথা- DNA ও RNA. এ দুই এসিডের পার্থক্য জীবের বংশগতি ও বিবর্তন অধ্যায়ে নিরূপণ করা আছে।

ঘ. উদ্দীপকে উল্লেখিত এসিডটি হলো নিউক্লিক এসিড। নিউক্লিক এসিড দুই ধরনের। যথা- DNA ও RNA. কিন্তু ক্রোমোজমে একমাত্র DNA শুধু বিদ্যমান। তাই মানবজীবনে DNA এর কি গুরুত্ব তা জীবের বংশগতি ও বিবর্তন অধ্যায়ে ব্যাখ্যা করা আছে।

• (জীবকোষ ও টিস্যু) নবম-দশম শ্রেনী : জীববিজ্ঞান ২য় অধ্যায় সৃজনশীল প্রশ্ন-উত্তর

সৃজনশীল প্রশ্ন ৬ : সাদাত লক্ষ করল, তার বাড়ির পাশের কুকুর, বিড়াল, ছাগল এগুলো প্রত্যেকেই ৩-৪টি করে বাচ্চা জন্ম দেয়। সে চিন্তা করল, এভাবে সারা বিশ্বের যতগুলো কুকুর, বিড়াল, ছাগল বা এরূপ প্রাণী রয়েছে তারা সকলে বছর বছর এতগুলো বাচ্চা প্রসব করলে তো কয়েক বছরেই পৃথিবীতে কুকুর, বিড়াল, ছাগল ভরে যেত, কিন্তু তা হয় না কেন। সে তার বাবাকে জিজ্ঞেস করায় বাবা বললেন— প্রকৃতির এক বিশেষ নিয়মের কারণেই এরূপ হয়।

ক. থ্যালাসেমিয়া মেজর রোগীদের কত বছর বয়সের মধ্যে মৃত্যুর ঝুঁকি থাকে?
খ. ‘Survival of the fittest’ বলতে কী বোঝায়— ব্যাখ্যা কর।
গ. সাদাতের বাবা প্রকৃতির যে নিয়মের কথা বলেছিলেন তা উদাহরণ বিশদ ব্যাখ্যা কর।
ঘ. প্রজাতির টিকে থাকায় উক্ত প্রাকৃতিক নিয়মটির গুরুত্ব বিশ্লেষণ কর।

সমাধান : ক. থ্যালাসেমিয়া মেজর রোগীদের ২০ থেকে ৩০ বছর বয়সে মৃত্যুর ঝুঁকি থাকে।

খ. যে বৈশিষ্ট্য, স্বভাব ও প্রকৃতি জীব বা তার বংশধরকে পরিবেশের সাথে মানিয়ে নিতে সক্ষম করে তোলে সেসব জীব অনুকূল বৈচিত্র্যের অধিকারী হয়। এটি বংশপরম্পরায় সঞ্চারিত হয়। ডারউইন জীবজগতে এ ধরনের অভিযোজনকে ‘Survival of the fittest’ বলে মনে করেছেন।

গ. সাদাতের বাবা প্রকৃতির যে নিয়মের কথা বলেছিলেন তা হলো ‘জীবের অত্যধিক প্রজননের প্রবণতা’। এ বিষয়ে জীবের বংশগতি ও বিবর্তন অধ্যায়ে ব্যাখ্যা করা আছে।

ঘ. প্রজাতির টিকে থাকায় উদ্দীপকের প্রাকৃতিক নিয়মগুলোর মধ্যে প্রাকৃতিক নির্বাচন, যোগ্যতমের টিকে থাকা, প্রজাতির টিকে থাকায় বিবর্তনের গুরুত্ব বিষয়ে জীবের বংশগতি ও বিবর্তন অধ্যায়ে আলোচনা করা আছে।

সৃজনশীল প্রশ্ন ৭ : ক্রোমোজোম হলো প্রধান বংশগতীয় বস্তু। এটি DNA, RNA এবং প্রোটিন দিয়ে গঠিত। মানুষের দুই প্রকার ক্রোমোজোম আছে। অটোজোম এবং সে ক্স ক্রোমোজোম। এদের মধ্যে শেষোক্তটি মানব লি ঙ্গ নির্ধারণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

ক. জৈব বিবর্তন কী?
খ. থ্যালাসেমিয়া কেন হয়? ব্যাখ্যা কর।
গ. উপরোক্ত বংশগতীয় বস্তুর প্রথম উপাদানটির গঠন জীবের বংশগতি ও বিবর্তন অধ্যায়ের আলোকে বর্ণনা কর।
ঘ. উদ্দীপকের শেষোক্ত লাইনটি বিশ্লেষণ কর।

সমাধান : ক. কয়েক হাজার বছর সময়ের ব্যাপকতায় জীব প্রজাতির পৃথিবীতে আবির্ভাব
ও টিকে থাকার জন্য যে পরিবর্তন ও অভিযোজন প্রক্রিয়া তাকে জৈব বিবর্তন বলে।

খ. থ্যালাসোমিয়া রক্তের লোহিত রক্তকণিকার এক অস্বাভাবিক অবস্থাজনিত রোগের নাম। এ রোগের লোহিত রক্তকণিকাগুলো নষ্ট হয়। ফলে রোগী রক্তশূন্যতায় ভোগে।

গ. উদ্দীপকের বংশগতীয় বস্তুর প্রথম উপাদান DNA. DNA এর গঠন জীবের বংশগতি ও বিবর্তন অধ্যায়ে বর্ণনা করা আছে।

ঘ. উদ্দীপকের শেষোক্ত লাইনে বলা হয়েছে, সে ক্স ক্রোমোজম মানব লি ঙ্গ নির্ধারণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। এ বিষয়ে জীবের বংশগতি ও বিবর্তন অধ্যায়ে বিস্তর আলোচনা করা আছে।

Leave a comment

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More