গরুর মাংস রান্না (৮ পদের রেসিপি)

গরুর মাংস রান্না খুবই সহজ। কিন্তু একই ধরনের গরুর মাংসের ভুনা আর কত?? সামনে কুরবানির ঈদ। এবার চায় নতুন কিছু। এবারের ঈদে খাবারের টেবিলে গরুর মাংসের নতুন নতুন খাবার আইটেম আর ভিন্ন ভিন্ন স্বাদ থাকতে হবে। তারই ধারাবাহিকতায় জীবনধারায় এবারের আলোচনার বিষয়বস্তু গরুর মাংসের ৮ পদের রেসিপি। যা সহজেই তৈরি করতে পারেন ঘরে বসেই।

গরুর মাংস রান্না

১/ গার্লিক বিফ :
ঝাল গরুর মাংস যাদের প্রিয় তাদের জন্য গার্লিক বিফ অন্যতম। ঘরে বসে খুব সহজেই তৈরি করে খেতে পারেন এই সুস্বাদু খাবার।

উপকরণ :
— গরুর মাংস- ১ কেজি
— ১ কাপ পেঁয়াজ কুচি, মরিচ গুঁড়া, হলুদ গুঁড়া, টক দই
— আধা চা চামচ আদা, রসুন বাটা, মাংসের মসলা, গরম মসলা গুঁড়া
— রসুনের কোয়া ৪/৫টি
— ধনে ও জিরা গুঁড়া ১ চা চামচ
— অল্প পরিমাণে টেস্টিং সল্ট
— আধা কাপ তেল, টমেটো সস
— পরিমাণমতো লবণ

প্রস্তুতপ্রণালী :
প্রথমে মাংস ধুয়ে কেটে নিন। তারপর নির্দিষ্ট একটি পাত্রে হলুদ, মরিচ, আদা, টক দই, রসুন, লবণ, ধনে, জিরা গুঁড়া, টেস্টিং সল্ট সবগুলোই কাটা মাংসের সাথে ভালো ভাবে মিশিয়ে ২০মিনিট মেরিনেট(সংরক্ষণ) করে রাখুন। কড়াইতে গরম তেলে পেঁয়াজ বাদামী করে ভাঁজা হলে মাংস ঢেলে নেড়ে কষতে থাকুন।
কষানো শেষ হয়ে গেলে সামান্য পানি দিয়ে নেড়ে সেদ্ধ হওয়ার আগ পর্যন্ত ঢেকে দিন। সেদ্ধ হয়ে গেলে টমেটোসস, কাঁচামরিচের ফালি ও কয়েকটি রসুনের কোয়া দিয়ে ১০মিনিট এর মতো ঢেকে দিন।
হয়ে গেলো ‘গার্লিক বিফ’। এবার গরম গরম পরিবেষণ করুন।

২/ গরুর মেজবানি মাংস :
বিশেষ করে বিয়ের অনুষ্ঠানে গরুর মেজবানি মাংস পরিবেশন করা হয়। তবে বিভিন্ন রেস্টুরেন্টেও পাওয়া যায়। চাইলেই এই সুস্বাদু ও ঐতিহাসিক গরুর মেজবানি মাংস ঘরেই তৈরি করতে পারেন খুব সহজেই।

উপকরণ :
— গরুর মাংস- ২ কেজি
— ১ কাপ পেঁয়াজ কুচি, সরিষার তেল, টক দই
— ১ টেবিল চামচ রসুন বাটা, হলুদ গুড়া, মরিচ গুঁড়া, ধনে, জিরা গুঁড়া
— ১ চা চামচ গোলমরিচ, মাংসের মসলা, মেথি গুঁড়া
— আধা চা চামচ জয়ফল ও জয়ত্রী
— ৫/৬ টি এলাচ ও দারুচিনি এবং ১০/১২ টি কাঁচামরিচ
— পরিমাণমতো লবণ

প্রস্তুতপ্রণালী :
মাংসগুলো ভালভাবে ধুয়ে পানি ঝরিয়ে নিতে হবে। একটি নির্দিষ্ট পাত্রে তেল, টক দই, হলুদ, মরিচ, আদা, রসুন, পেঁয়াজ, লবণসহ সবধরনের মসলা মাংসের সাথে মিশিয়ে মেরিনেট করে রাখতে হবে। পেঁয়াজের অর্ধেক অংশ তেলে ভেজে বেরেস্তা করে রেখে দিন। অন্যদিকে মেরিনেট করা মাংস কষতে হবে। কষানো অবস্থা ২কাপ পানি দিয়ে আরো কিছুক্ষণ কষতে হবে। মাংস থেকে পানি ঝরে গেলে হালকা আঁচে সিদ্ধ হওয়ার আগ পর্যন্ত রান্না করতে হবে।
মাংসের পানি শুকিয়ে গেলে কাঁচামরিচ, ধনে ও জিরা গুঁড়া হালকা আঁচে ১০ মিনিট রেখে নামিয়ে নিয়ে পেঁয়াজের বেরেস্তা দিয়ে গরম গরম পরিবেষণ করুন।

৩/ কাঁটা মসলায় বিফ ভুনা :
খিচুড়ি কিংবা পোলাও এর সাথে বিফ ভুনা খাওয়ার মজাই আলাদা। আর সেটা যদি হয় কাঁটা মসলার বিফ ভুনা তাহলে তো স্বাদের পরিমাণ বাড়বে দ্বিগুণ। নিশ্চিয় জিভে জল চলে আসছে? চলুন জেনে নিই কাঁটা মসলায় বিফ ভুনার রেসিপি।

উপকরণ :
— গরুর মাংস- ১ কেজি
— ১ টেবিল চামচ আদা বাটা
— আধা টেবিল চামচ রসুন বাটা, জয়ফল ও জয়ত্রী
— আধা কাপ পেঁয়াজ কুচি, টক দই
— সামান্য হলুদ গুড়া, দারুচিনি, এলাচ
— ১/২ টি তেজপাতা, ১৫/২০ টি শুকনো মরিচ কাটা
— পরিমাণমতো লবণ ও তেল

প্রস্তুতপ্রণালী :
প্রথমে টক দই ও মাংস ভালভাবে মিশিয়ে মেরিনেট করে কিছুক্ষণ রাখতে হবে। এদিকে চুলায় তেল গরম করতে দিতে হবে। গরম হয়ে গেলে মেরিনেট করা মাংস ঢেলে দিয়ে ভালভাবে ভাজতে হবে। ভাজা শেষ হয়ে গেলে পেঁয়াজ কুচি ও শুকনো মরিচসহ সকল মসলা ভালোভাবে মিশিয়ে কষতে হবে।
কষানো হলে হালকা পানি দিয়ে কিছুক্ষণ রাখতে হবে। মাংসে তেল ভেসে আসলে চুলা থেকে নামিয়ে পরিবেষণ করুন।

৪/ গরুর কড়াই গোস্ত :
বিখ্যাত খাবার কাশ্মীরি পোলাও এর নাম নিশ্চয় সবাই শুনেছি। এই কাশ্মীরি পোলাও এর স্বাদ বহুগুণে বাড়িয়ে দিতে গরুর কড়াই গোস্তই যথেষ্ট। জেনে নিন এই সুস্বাদু খাবারের রেসিপি।

উপকরণ :
— গরুর মাংস- ১ কেজি
— আধা কাপ পেঁয়াজ কুচি
— ১ কাপ তেল, টক দই, টমেটো কিউব
— ১ টেবিল চামচ হলুদ ও মরিচ গুঁড়া
— ১ চা চামচ মাংসের মসলা, জয়ফল ও জয়ত্রী বাটা
— ২/৩ টি রসুন কোয়া, ২ টি তেজপাতা, ৩/৪ টুকরো দারুচিনি ও এলাচ
— স্বাদমতো লবণ

প্রস্তুতপ্রণালী :
প্রথমে মাংসগুলো ভালভাবে ধুয়ে পানি ঝরিয়ে নিতে হবে। এরপর একটি নির্দিষ্ট পাত্রে টক দই, লবণ ও সব ধরনের মসলার সাথে ধুয়ে রাখা মাংসের সাথে ভালো ভাবে মিশিয়ে ২০ মিনিট মেরিনেট করে রাখতে হবে। এবার একটি পাত্রে তেল গরম করে পেঁয়াজের অর্ধেক অংশের কুচি, দারুচিনি, এলাচ, তেজপাতা হালকা বাদামী করে ভেজে নিতে হবে। তারপর মেরিনেট করে রাখা মাংসের সাথে মিশিয়ে কষতে হবে। কষা হলে ৪ কাপ মতো পানি দিয়ে হালকা আঁচে রান্না করতে হবে।
মাংস সিদ্ধ হলে এবং মাংসের উপরে তেল ভাসলে চুলা থেকে নামিয়ে রাখতে হবে। এবার হালকা তেলে পেঁয়াজ কুচি, রসুন বাটা এবং টমেটো কিউব বাদামি করে ভেজে মাংসের সাথে মিশিয়ে ২/৩ মিনিট চুলার উপর রাখতে হবে। তাহলেই হয়ে যাবে গরুর কড়াই গোস্ত।

৫/ টক ঝাল গরুর মাংস(আলু বোখারা দিয়ে) :
কোরবানির ঈদ মানেই মাংসের বাহার। তবে হরেক পদের মাংস রান্না হলে তো কোনো কথায় নাই। মাংস রান্নায় নতুনত্ব নিয়ে আসতে তৈরি করতে পারেন আলুর বোখারায় টক ঝাল গরুর মাংস। জেনে নিন তার রেসিপি।

উপকরণ :
— গরুর মাংস দেড়(১.৫) কেজি
— আধা কাপ পেঁয়াজ বাটা, পেঁয়াজ কুচি
— ১ টেবিল চামচ বাদাম বাটা, কিসমিস বাটা
— ২ টেবিল চামচ আদা বাটা
— ১ কাপ টক দই
— ১ চা চামচ লেবুর রস, শুকনা মরিচ টালা গুঁড়া
— আধা চা চামচ হলুদ গুঁড়া, জয়ফল ও জয়ত্রী বাটা
— ৪/৫ টি কাঁচা মরিচ, ১০/১২ টি আলু বোখারা, ৪/৫ টি কাঁচা মরিচ, ৩/৪ কাপ ঘি

প্রস্তুতপ্রণালী :
প্রথমে পেঁয়াজ বাদামী করে ভেজে নিতে হবে। এবার মাংসের সাথে আদা, রসুন, পেঁয়াজ বাটা ও লবণ মিশিয়ে কষাতে হবে৷ আবার দই, হলুদ, মরিচ, গোলমরিচ ও সামান্য গরম পানি মিশিয়ে কষতে হবে। বাদাম ও কিসমিস বাটা এবং বিচি ফেলে অর্ধেক আলু বোখারা বাটা মিশিয়ে নিতে হবে আর বাকি অর্ধেক আলু বোখারা ছিটিয়ে ৪-৫ মিনিট চুলাতে রেখলেই হয়ে যাবে আলু বোখারার টক ঝাল গরুর মাংস।

৬/ গরুর মাথার মাংস ভুনা :
অনেকে আবার গরুর মাংসের চেয়ে গরুর মাথার মাংস খেতে বেশি পছন্দ করে। কিন্তু গরুর মাথার মাংস যেমন-তেমন করে রান্না করলে তেমন স্বাদ মোটেও পাওয়া যাবে না। তাই আপনাদের জন্য নিয়ে আসলাম গরুর মাথার মাংস ভুনার নতুন রেসিপি।

উপকরণ :
— গরুর মাথার মাংস- ১ কেজি
— ১ কাপ পেঁয়াজ কুচি
— আধা কাপ টমেটো কুচি, সরিষার তেল
— আধা চা চামচ হলুদ গুঁড়া, ধনে গুঁড়া, গোলমরিচ গুঁড়া
— ১ চা চামচ আদা বাটা, গরম মসলা গুঁড়া
— ২ টি তেজপাতা

প্রস্তুতপ্রণালী :
প্রথমে পেঁয়াজ তেলে ফেলে বাদামি করে ভেজে নিতে হবে। এবার মাংসের সাথে হলুদ গুঁড়া, মরিচ গুঁড়া, তেজপাতা, আদা বাটা, রসুন বাটা, পেঁয়াজ বাটা ও টমেটো মিশিয়ে বাদামি করে ভাজা পেঁয়াজের সাথে মিশিয়ে কষতে হবে। তারপর পরিমিত পরিমাণে গরম পানি দিয়ে ঢেকে দিতে হবে। কিছুক্ষণ পর গরম মসলা গুঁড়া, জিরা গুঁড়া, ধনে গুঁড়া, জয়ফল ও জয়ত্রী গুঁড়া দিয়ে সিদ্ধ হওয়ার আগ পর্যন্ত ঢেকে দিতে হবে। সিদ্ধ হয়ে গেলে চুলা থেকে নামিয়ে গরম গরম পরিবেষণ করুন।

৭/ লেবু পাতা দিয়ে গরুর মাংস :
যারা গরুর মাংসের সাথে পরোটা বা চালের রুটি খেতে পছন্দ করেন তাদের জন্য প্রয়োজনীয় একটি রেসিপি হচ্ছে লেবু পাতা দিয়ে গরুর মাংস। জেনে নিন লেবু পাতা দিয়ে গরুর মাংসের রেসিপি।

উপকরণ :
— গরুর মাংস ১ কেজি
— ৩ টেবিল চামচ পেঁয়াজ কুচি
— ১ টেবিল চামচ টক দই
— আধা চা চামচ হলুদ গুঁড়া, রসুন বাটা, ধনে গুঁড়া, গোলমরিচ
— ১ চা চামচ জিরা বাটা, আদা বাটা, লেবুর রস
— ৮/১০ টি লেবু পাতা, পরিমাণমতো লবণ, কয়েকটি গরম মসলা

প্রস্তুতপ্রণালী :
প্রথমে গরম তেলে পেঁয়াজ ভেজে বাদামি করতে হবে। এবার মাংসের সাথে গরম মসলা, হলুদ গুঁড়া, মরিচ গুঁড়া, আদা ও রসুন বাটা, জিরা, ধনে, টক দই মিশিয়ে ভালভাবে কষতে হবে। কষতে কষতে ভালোভাবে মাংসের ভুনা করতে হবে। এবার পরিমাণমতো পানি দিয়ে সেদ্ধ করুন। সেদ্ধ হয়ে গেলে লেবুর রস ও লেবুর পাতা দিয়ে নামিয়ে নিন। হয়ে গেলো লেবু পাতা দিয়ে গরুর মাংস।

৮/ গরুর কালা ভুনা :
গরুর মাংসের কালা ভুনা নাম নিশ্চয় শুনেছেন? ঐতিহাসিক এই খাবারের সঠিক রেসিপি অনেকেই জানেন না। জেনে নিন গরুর কালা ভুনার রেসিপি এবং বাড়িতে তৈরি করে পরিবেশন করুন।

উপকরণ :
— গরুর মাংস দেড়(১.৫) কেজি
— ১ টেবিল চামচ আদা বাটা, ধনে গুঁড়া
— আধা চা চামচ রসুন বাটা, হলুদ গুঁড়া, গরম মসলা গুঁড়া
— আধা টেবিল চামচ গোলমরিচ গুঁড়া
— ১ চা চামচ মরিচ গুঁড়া
— ১ কাপ পেঁয়াজ কুচি
— এলাচ, দারুচিনি, কয়েকটি তেজপাতা, পরিমাণমতো লবণ ও সরিষার তেল

প্রস্তুতপ্রণালী :
গরুর মাংসের সাথে সকল উপকরণ মিশিয়ে রান্না করতে হবে। মাংস সিদ্ধ হয়ে এবং পানি শুকিয়ে আসলে চুলা থেকে নামিয়ে লোহার কড়াইয়ে সরিষার তেলে হালকা আঁচিয়ে কালো করে ভেজে নিতে হবে। তাহলেই হয়ে গেলো গরুর কালা ভুনা।

গরুর মাংসের ১০টি পুষ্টিগুণ

অনেকে ভাবেন, গরুর মাংসে অধিক কোলেস্টেরল থাকায় এটি এড়িয়ে চলায় ভালো। কিন্তু গরুর মাংসে যেমন ক্ষতিকর দিক রয়েছে৷ তেমনি অনেক ভালো দিক রয়েছে। তবে পরিমাণমতো, নিয়মানুসারে খেলে ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা কম থাকে। পুষ্টিবিদের মতে, গরুর মাংসে শরীরের জন্য প্রয়োজনীয় প্রোটিন, ভিটামিন ও মিনারেলস বা খনিজ উপাদান রয়েছে। তাই বিভিন্ন রেসিপির গরুর মাংস রান্না করে খেয়েও আমরা বিভিন্ন উপকারিতা নিতে পারি।

★ রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে
★ পেশি, দাঁত ও হাড়ের গঠন ঠিক রাখে
★ চুল ও নখের স্বাস্থ্য ঠিক রাখে
★ শারিরীক বৃদ্ধি ও বুদ্ধি বৃদ্ধি পায়
★ দৃষ্টিশক্তি ভালো রাখে এবং স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধি করে
★ অলসতা, মানসিক বিভ্রান্তি ও হতাশা দূর করতে সহয়তা করে এবং কাজের প্রতি এনার্জি নিয়ে আসে
★ রক্তস্বল্পতা প্রতিরোধে সহায়তা করে
★ ডায়রিয়া প্রতিরোধে সহায়তা করে
★ খাবার থেকে দেহে শক্তি স্টক করে

> আরো পড়ুন : কাঁচা আমের জুস (রেসিপি ও উপকারিতা)

স্বাস্থ্য সচেতনতামূলক আরো নিত্যনতুন আপডেট পেতে জয়েন করুন জীবনধারার ফেসবুক গ্রুপ জীবনধারা (সুস্থ্য দেহ, সুস্থ্য মন) এ।

Leave a comment

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More