(কোষ বিভাজন) এইচএসসি : জীববিজ্ঞান সৃজনশীল প্রশ্নোত্তর

কোষ বিভাজন হচ্ছে একাদশ-দ্বাদশ শ্রেণির জীববিজ্ঞান ১ম পত্রের ২য় অধ্যায়। কোষ বিভাজন অধ্যায় থেকে সেরা বাছাইকৃত ৫টি সৃজনশীল প্রশ্ন এবং সে প্রশ্নগুলোর উত্তর সম্পর্কে আলোচনা করা হলো-

সৃজনশীল প্রশ্ন ১ : A বিভাজনের মাধ্যমে উদ্ভিদের পাতা ও ফুল সৃষ্টি হয় এবং B বিভাজনের মাধ্যমে পরাগরেণু উৎপন্ন হয়। উদ্ভিদের জীবনে এই দুই ধরনের বিভাজনের গুরুত্ব অসীম।

ক. বায়োম কী?
খ. ভাইরাসকে সেতুবন্ধনকারী জীব বলা হয় কেন?
গ. উদ্দীপকের A বিভাজনের ৪র্থ ধাপটির বর্ণনা কর।
ঘ. A বিভাজন B বিভাজন হতে ভিন্ন-বিশ্লেষণ কর।

সমাধান : ক. উদ্ভিদ, প্রাণী, মাটি ও জলবায়ুর সাথে পারস্পরিক সম্পর্কের মাধ্যমে যে বাস্তুতান্ত্রিক একক গড়ে উঠে তাই হলো বায়োম।

খ. জীব ও জড়ের মধ্যে সংযোগ সৃষ্টি করে বলে ভাইরাসকে সেতুবন্ধনকারী জীব বলা হয়।
ভাইরাস উপযুক্ত পোষক কোষের অভ্যন্তরে সংখ্যা বৃদ্ধি করে এবং জীবীয় বৈশিষ্ট্য প্রকাশ করে কিন্তু জীবকোষের বাইরে জড় পদার্থের মতো নিষ্ক্রিয় অবস্থান করে। জীবজগতে ভাইরাসের অবস্থান সম্পর্কে বিজ্ঞানী A. Lowff বলেছেন যে, ভাইরাস ভাইরাসই। এগুলো জীবও নয়, জড়ও নয় বরং এগুলো জীব ও জড় উভয়ের মধ্যে সেতুবন্ধন সৃষ্টিকারী এক ধরনের সত্ত্বা।

গ. উদ্দীপকে উল্লিখিত ‘A’ বিভাজনটি হলো মাইটোসিস কোষ বিভাজন
মাইটোসিস কোষ বিভাজনের চতুর্থ ধাপটি হলো অ্যানাফেজ। সেন্ট্রোমিয়ার পৃথক হওয়ার সাথে সাথে অ্যানাফেজ পর্যায় শুরু হয়। এ পর্যায়ে অপত্য ক্রোমোসোম সমূহ বিষুবীয় অঞ্চল থেকে মেরুমুখী চলতে শুরু করে। সেন্ট্রোমিয়ারের পূর্ণ বিভক্তির ফলে প্রতিটি ক্রোমাটিড একটি অপত্য ক্রোমোসোমে পরিণত হয় এবং প্রতিটি অপত্য ক্রোমোসোম এদের নিকটস্থ মেরুর দিকে ধাবিত হয়। অপত্য ক্রোমোসোমের মেরু অভিমুখী চলনে সেন্ট্রোমিয়ারই অগ্রগামী থাকে এবং বাহুদ্বয় অনুগামী হয়, ফলে সেন্ট্রোমিয়ারের অবস্থান অনুযায়ী ক্রোমোসোমগুলো V, L, J, I এর মতো দেখায়। অপত্য ক্রোমোসোমগুলো মেরুর কাছাকাছি পৌছালেই অ্যানাফেজ তথা গতিপর্যায়ের সমাপ্তি ঘটে।

ঘ. উদ্দীপকে উল্লিখিত A ও B দ্বারা যথাক্রমে মাইটোসিস ও মিয়োসিস কোষ বিভাজনকে নির্দেশ করা হয়েছে।
মাইটোসিস জীবের হ্যাপ্লয়েড, ডিপ্লয়েড বা পলিপ্লয়েড দেহকোষে ঘটে, ফলে জীবের দৈহিক বৃদ্ধি হয়। মিয়োসিস সাধারণত ডিপ্লয়েড জীবের জনন মাতৃকোষে ঘটে, ফল একবার বিভাজিত হয়ে দুটি নিউক্লিয়াস সৃষ্টি করে। মিয়োসিসে মাতৃকোষের নিউক্লিয়াসটি দুবার বিভাজিত হয়ে চারটি অপত্য নিউক্লিয়াস সৃষ্টি করে। মাইটোসিসে সৃষ্ট প্রতিটি অপত্য কোষে ক্রোমোসোম সংখ্যা মাতৃকোষের সমান থাকে। মিয়োসিসে সৃষ্ট প্রতিটি অপত্য কোষে ক্রোমোসোম সংখ্যা মাতৃকোষের অর্ধেক হয়ে যায়।

মাইটোসিসে সৃষ্ট অপত্য কোষের গুণাগুণ মাতৃকোষের সমগুণ সম্পন্ন হয়। মিয়োসিসে সৃষ্ট অপত্য কোষের গুণাগুণ মাতৃকোষ হতে ভিন্নগুণ সম্পন্ন হয়। মাইটোসিসে ক্রোমোসোমে কায়াজমা সৃষ্টি বা ক্রসিংওভার ঘটে না। মিয়োসিসে ক্রোমোসোমে কায়াজমা সৃষ্টি বা ক্রসিংওভার ঘটে। মাইটোসিসে ক্রোমোসোম জোড়বদ্ধ হয়ে বাইভ্যালেন্ট সৃষ্টি করে না। মিয়োসিসে ক্রোমোসোম জোড়বদ্ধ হয়ে বাইভ্যালেন্ট সৃষ্টি করে। জীবের প্রকরণ, বৈচিত্র্য সৃষ্টি ও অভিব্যক্তিতে মাইটোসিসের কোনো ভূমিকা নেই। জীবের প্রকরণ, বৈচিত্র্য সৃষ্টি ও অভিব্যক্তিতে মিয়োসিসের ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। উপরের আলোচনা থেকে এটা স্পষ্ট যে, A বিভাজন B বিভাজন হতে সম্পূর্ণ আলাদা।

সৃজনশীল প্রশ্ন ২ : এক প্রকার কোষ বিভাজনের মাধ্যমে উচ্চ শ্রেণির জীবের জনন কোষ সৃষ্টি হয়। ডিপ্লয়েড ক্রোমোজোম বিশিষ্ট একটি মাতৃকোষ বিভাজিত হয়ে চারটি অপত্য কোষ সৃষ্টি করে এবং অপত্য কোষগুলোর ক্রোমোজোম সংখ্যা মাতৃকোষের ক্রোমোজোম সংখ্যার অর্ধেক। বংশ বৃদ্ধির এ কোষ বিভাজনের একটি দীর্ঘ ও জটিল পর্যায় রয়েছে।

ক. ক্রসিং ওভার কী?
খ. উদ্দীপকের বিভাজন নিম্নশ্রেণির জীবে নিষেকের পর এবং উচ্চ শ্রেণির জীবে নিষেকের পূর্বে হয়, কারণ ব্যাখ্যা কর।
গ. উদ্দীপকের শেষ উক্তির পর্যায়টির দ্বিতীয় ও তৃতীয় উপধাপের চিত্রসহ কোষ বিভাজন অধ্যায়ের আলোকে বর্ণনা কর।
ঘ. জীবজগতে উদ্দীপক উল্লেখিত মিয়োসিস কোষ বিভাজন না হলে কী হতো— ব্যাখ্যা কর।

সমাধান : ক. এক জোড়া সমসংস্থ ক্রোমোসোমের দুটি নন-সিস্টার ক্রোমাটিড এর মধ্যে অংশের বিনিময় হওয়ার প্রক্রিয়াই হলো ক্রসিংওভার।

খ. উদ্দীপকের বিভাজন হলো মিয়োসিস কোষ বিভাজন
এটি নিম্নশ্রেণির জীবে নিষেকের পর এবং উচ্চ শ্রেণির জীবে নিষেকের পূর্বে হয়। কারণ নিম্নশ্রেণির জীব হ্যাপ্লয়েড প্রকৃতির এবং উচ্চ শ্রেণির জীব ডিপ্লয়েড প্রকৃতির। নিষেকের পরে সৃষ্ট জাইগোট সর্বদাই ডিপ্লয়েড হয়। বংশপরম্পরায় ক্রোমোসোম সংখ্যা ধ্রুব রাখার জন্যই নিম্নশ্রেণির জীবে নিষেকের পর ও উচ্চশ্রেণির জীবে নিষেকের পূর্বে মিয়োসিস বিভাজন হয়।

গ. উদ্দীপকে উল্লেখিত শেষ উক্তিটা দ্ধারা মিয়োসিস-১ কোষ বিভজনের প্রোফেজ-১ পর্যায়কে বোঝানো হয়েছে। এবং প্রোফেজ-১ পর্যায়ের ২য় ও ৩য় ধাপ হলো যথাক্রমে জাইগোটিন ও প্যাকাইটিন। এ সম্পর্কে উক্ত অধ্যায়ে আলোচনা করা আছে।

ঘ. উদ্দীপকে উল্লেখিত কোষ বিভাজন প্রক্রিয়াটি হলো মিয়োসিস। মিয়োসিস কোষ বিভাজন না হলে জীবজগতের যা যা সমস্যা দেখা যায় তা উক্ত অধ্যায়ে আলোচনা করা আছে।

সৃজনশীল প্রশ্ন ৩ : দনিয়া কলেজের রিপন একজন শিক্ষক। কলেজ আসার পথে সড়ক দূর্ঘটনার স্বীকার হলে হাত, পা সহ শরীরে বিভিন্ন স্থানে ক্ষত হয়। পরবর্তীতে ঢাকা পঙ্গু হাসপাতালে চিকিৎসার পর তার ক্ষত স্থানগুলি পূরণ হয়ে পূর্ণ সুস্থ হয়ে উঠে।

ক. বাইভ্যালেন্ট কী?
খ. মিয়োসিস কোষ বিভাজনকে হ্রাসমূলক কোষ বিভাজন বলা হয় কেন?
গ. রিপনের শরীরের ক্ষত স্থান পূরণ করার জন্য মাইটোসিস কোষ বিভাজন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। আর এই মাইটোসিসের ১ম পর্যায়ের চিত্রসহ বর্ণনা করো।
ঘ. রিপনের শরীরের মতো উদ্ভিদের ক্ষেত্রেও ঝড়ের বা প্রাকৃতিক দূর্যোগে গাছের যদি এরকম ক্ষত হয় তাহলে গাছের উক্ত ক্ষত কীভাবে পূরণ হয় তা বর্ণনা করো।

সমাধান : ক. প্রতিটি জোড় বাঁধা ক্রোমোসোম যুগলই হলো বাইভ্যালেন্ট।

খ. মিয়োসিস বিভাজনে ক্রোমোসোম সংখ্যা অর্ধেক হ্রাস পায় বলে এ প্রক্রিয়াকে হ্রাসমূলক বিভাজন বলে। মিয়োসিস প্রক্রিয়ায় একটি জনন মাতৃকোষ বিভক্ত হয়ে চারটি অপত্য কোষে পরিণত হয়। এ প্রক্রিয়ায় কোষের নিউক্লিয়াস দুবার এবং ক্রোমোসোম একবার বিভক্ত হয়, ফলে অপত্য কোষে ক্রোমোসোম সংখ্যা মাতৃকোষের ক্রোমোসোম সংখ্যার অর্ধেক হয়ে যায়।

গ. উদ্দীপকে উদ্ধৃত রিপনের শরীরের ক্ষত স্থান পূরণ হওয়ার ক্ষেত্রে মাইটোসিস কোষ বিভাজন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। মাইটোসিস কোষ বিভাজনের প্রথম পর্যায় হলো প্রোফেজ। প্রোফেজের চিত্রসহ বর্ণনা কোষ বিভাজন অধ্যায়ে দেওয়া আছে।

ঘ. উদ্দীপকে উল্লেখিত রিপনের শরীরের মতো উদ্ভিদের ক্ষেত্রেও ঝড়ের বা প্রাকৃতিক দূর্যোগে গাছের ক্ষত হতে পারে। সেক্ষেত্রে উক্ত ক্ষত মাইটোসিস প্রক্রিয়ায় পূরণ হবে। এ সম্পর্কে কোষ বিভাজন অধ্যায়ে আলোচনা করা আছে।

সৃজনশীল প্রশ্ন ৪ : শিমু গত সপ্তাহে একটি পুঁইশাকের ডগা লাগিয়েছিল। পুঁইশাকের ডগাটি এক সপ্তাহে খুব দ্রুত বৃদ্ধি পেয়ে উপরের দিকে উঠেছে। গাছটির অন্যান্য অঙ্গ অপেক্ষা ডগাটি খুব দ্রুত বৃদ্ধি পেয়ে উপরের দিকে উঠেছে।

ক. মেরিস্টেমেটিক কোষ কাকে বলে?
খ. কোন ধরনের কোষে মাইটোসিস রিভাজন হয়?
গ. শিমুর লাগানো গাছটির ডগায় উপস্থিত টিস্যুর বৈশিষ্ট্যগুলো লিখ।
ঘ. গাছটির দ্রুতবর্ধনশীল অংশে যে কোষ বিভাজন সংঘটিত হয় তার গুরুত্ব বিশ্লেষণ কর।

সমাধান : ক. যে কোষগুলো বিভাজনক্ষমতা সম্পন্ন তাদের মেরিস্টেমেটিক কোষ বলে ।

খ. মাইটোসিস বিভাজন প্রাণী ও উদ্ভিদের বিভাজন ক্ষমতা সম্পন্ন দৈহিক কোষে ঘটে থাকে। উদ্ভিদের কাণ্ড ও তার শাখা-প্রশাখার শীর্ষ, মূলের বর্ধিষ্ণু অঞ্চল, ক্যাম্বিয়াম প্রভৃতি অঞ্চলে মাইটোসিস হয়ে থাকে। প্রাণীর স্নায়ুকোষ ছাড়া সকল দেহকোষ এ প্রক্রিয়ায় বিভাজিত হয়। জননাঙ্গের গঠন ও বৃদ্ধিও মাইটোসিস প্রক্রিয়ায় হয়ে থাকে।

গ. উদ্দীপকে শিমুর লাগানো গাছটির ডগায় ভাজক টিস্যু উপস্থিত। ভাজক টিস্যুর বৈশিষ্ট্যগুলো কোষ বিভাজন অধ্যায়ে দেওয়া আছে।

ঘ. উদ্দীপকে গাছটির দ্রুত বর্ধনশীল অংশে মাইটোসিস কোষ বিভাজন সংঘটিত। মাইটোসিসের গুরুত্ব কোষ বিভাজন অধ্যায়ে আলোচনা করা আছে।

• (কোষ ও এর গঠন) এইচএসসি : জীববিজ্ঞান সৃজনশীল প্রশ্নোত্তর

সৃজনশীল প্রশ্ন ৫ : মাইশা তার বাবার মত উচ্চতা ও মায়ের গায়ের রঙ পেয়েছে। অন্যদিকে তার ছোট ভাই বাবার মত গায়ের রং ও মায়ের মত চোখ পেয়েছে। আজ তার জীববিজ্ঞানের শিক্ষক বললেন, প্রকৃতকোষী জীবে দু’ধরনের কোষ বিভাজন হয়। ১ম প্রকারের বিভাজন দেহকোষে হয় এবং এতে অপত্য কোষে ক্রোমোসোমের সংখ্যা সমান থাকে। অন্যদিকে, মিয়োসিসে অপত্যকোষে ক্রোমোসোমের সংখ্যা অর্ধেক হয়ে যায় এবং ক্রোমোসোমগুলোর মধ্যে অংশ বিনিময়ের ফলে জীবজগতে বৈচিত্র্য সৃষ্টি হয় ।

ক. এনজাইম কাকে বলে?
খ. দ্বি-নিষেক বলতে কী বুঝ?
গ. জীবদেহে ১ম প্রকার কোষ বিভাজনের গুরুত্ব ব্যাখ্যা কর।
ঘ. মাইশা ও তার ভাইয়ের চেহারার মধ্যে ভিন্নতার কারণ চিত্রসহ বর্ণনা কর।

সমাধান : ক. যে প্রোটিন কোন জীবদেহে অতি অল্পমাত্রায় উপস্থিত থেকে জীবদেহে বিক্রিয়ার হারকে ত্বরান্বিত করে এবং বিক্রিয়ার শেষে নিজে অপরিবর্তিত থাকে, তাকে বলা হয় এনজাইম।

খ. একই সময়ে ডিম্বাণুর সাথে একটি পুংগ্যামিটের মিলন ও সেকেণ্ডারি নিউক্লিয়াসের সাথে অপর পুংগ্যামিটের মিলন প্রক্রিয়াকে দ্বি নিষেক ক্রিয়া বলে। দ্বি-নিষেক আবৃতবীজী উদ্ভিদের বিশেষ বৈশিষ্ট্য। এ প্রক্রিয়ায় ডিম্বাণু জাইগোটে পরিণত হয় এবং ডিপ্লয়েড অবস্থা প্রাপ্ত হয় এবং সেকেণ্ডারি নিউক্লিয়াস ট্রিপ্লয়েড অবস্থাপ্রাপ্ত হয়।

গ. উদ্দীপকে বর্ণিত প্রথম প্রকার কোষ বিভাজন দ্ধারা মাইটোসিস কোষ বিভাজনকে বোঝানো হয়েছে। মাইটোসিস কোষ বিভাজনের গুরুত্ব কোষ বিভাজন অধ্যায়ে ব্যাখ্যা করা আছে।

ঘ. মাইশা ও তার ভাইয়ের চেহারার মধ্যে ভিন্নতার কারণ হলো ক্রসিংওভার। ক্রসিংওভারের চিত্রসহ বর্ণনা কোষ বিভাজন অধ্যায়ে দেওয়া আছে।

Leave a comment

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More